(দিনাজপুর২৪.কম) ২০১৫ সালে মুক্তি পায় ভারতের ইতিহাসের অন্যতম ব্যবসাসফল ফ্র্যাঞ্চাইজি ‘বাহুবলী’র প্রথম কিস্তি ‘বাহুবলী : দ্য বিগিনিং’। মূল ছবি তেলেগু হলেও হিন্দি, ইংরেজি, তামিলসহ একাধিক ভাষায় মুক্তি পায় এটি। বলিউডসর্বস্ব চলচ্চিত্র জগৎকে কড়া চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছিল এসএস রাজামৌলি পরিচালিত ছবিটি। এতে অভিনয় করে জনপ্রিয়তার শিখরে পৌঁছে যান দক্ষিণী তারকা প্রভাস। আজ তার জন্মদিন। এই দিনে জেনে নেওয়া যাক, দ্বিতীয় কিস্তি ‘বাহুবলী ২ : দ্য কনক্লুশন’ বানাতে কী কী করতে হয়েছিল পুরো টিমকে…

ষ ‘বাহুবলী’র আসল গল্প প্রকাশ পায় ‘বাহুবলী ২’-এ। মুক্তির আগেই ছবির নতুন একটি পোস্টার প্রকাশ করা হয়। এতে দেখা যায়, নাম ভূমিকায় অভিনয় করা প্রভাস ও রানি দেবসেনা আনুশকা শেঠিকে। দুজনেই ধনুকে তীর সংযোগ করে পোজ দেন। আনুশকাকে এখানে অল্পবয়সের লুকে দেখা যায়।

ষ দ্বিতীয় কিস্তিটি বাহুবলী ও দেবসেনার প্রেমকাহিনিকে ঘিরেই গড়ে ওঠা। ছবির বেশিরভাগ অংশজুড়েই ছিল দেবসেনার সঙ্গে বাহুবলীর বিবাহ এবং ঈর্ষাকাতর তুতোভাইয়ের চক্রান্তে বাহুবলীর হত্যার গল্প। বাহুবলীর ছেলে ও তার প্রেমিকা অবন্তিকার কাহিনি এখানে প্রাধান্য পায় পিতৃহত্যার প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য।

বাহুবলীর চরিত্রে অভিনয় করার জন্য প্রভাসকে প্রচুর পরিমাণে ওয়েট ট্রেনিং নিতে হয়েছিল। এর জন্য অভিনেতা তার বাড়িতে দেড় কোটি টাকা দিয়ে একটি জিমও বানান! এই জিমের যাবতীয় যন্ত্রপাতি আনা হয় বিদেশ থেকে।

পেশিবহুল চেহারা বানাতে প্রভাসকে ‘ডব্লিউ ডব্লিউ ই’র কুস্তিগীরদের পরামর্শও নিতে হয়েছিল। রোজ তিনি ৪০টি করে ডিমও খেয়েছেন। ছবির শুটিং শুরুর ৮ মাস আগে থেকেই এই ‘হেভি জিম রেজিম’ শুরু করেন প্রভাস।

বাহুবলীর অন্যতম মুখ্যচরিত্র বল্লালদেব চরিত্রে দেখা যায় রানা দ¹ুবতিকে। এই চরিত্রে তাকেও হেভি জিম রেজিমে থাকতে হয়েছিল। সেই সঙ্গে প্রশিক্ষণ নিতে হয়েছিল মার্শাল আর্টের।

ছবি শুরুর আগে কাঁধে চোট পেয়েছিলেন প্রভাস। পরে নিজেই টুইট করে জানান, চোট সে রকম গুরুতর নয়।

‘বাহুবলী ২’-এ কাট্টাপ্পাকে দেখা যায় এক নতুন চেহারায়। রাজসিংহাসনকে রক্ষা করতে সে নিজের জীবনকে বাজি লাগাতে পারে, বিপরীতে নিজের সন্তানসম বাহুবলীকে হত্যা করতেও পিছপা হয় না।

অবন্তিকার চরিত্রের তামান্না ভাটিয়াকেও এই ছবিতে ক্ষুরধার করে উপস্থিত করা হয়েছে। ঘোড়ায় চড়ার এমন কিছু দুরন্ত দৃশ্য আছে, যার জন্য অভিনেত্রীকে বিশেষ প্রশিক্ষণ নিতে হয়েছিল।

এবার আসা যাক ‘বাহুবলী ২’-এর প্রধান নারী চরিত্র দেবসেনার কথায়। এতে আনুশকা শেঠিকে একদম নবযৌবনা লুকেই দেখা গেছে। চরিত্রটির জন্য নানা ধরনের অস্ত্র এবং তরবারি চালনারও প্রশিক্ষণ নিতে হয়েছিল আনুশকাকে। পাশাপাশি নিজের গ্ল্যামারকে পর্দায় ফুটিয়ে তুলতেও বিশেষ বিউটিকেয়ার সেশনের মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে।

‘বাহুবলী ২’-এ সবচেয়ে বড় চমক দিয়েছে ভিজ্যুয়াল ভিএফএক্স এবং গ্রাফিক্সের কাজ। এর জন্য হলিউড থেকে ভিএফএক্স বিশেষজ্ঞদের আনা হয়। -ডেস্ক