(দিনাজপুর২৪.কম) গত কয়েক বছরে আরও বেশ কয়েকবার আবু বকর আল বাগদাদির মৃত্যুর খবর দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। ফলে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসনের দাবি নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে। অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন, বাগদাদির যদি মৃত্যুই হয়, তাহলে দেহাবশেষ কোথায়।

রবিবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দাবি করেছেন, জঙ্গি গোষ্ঠী দায়েশ বা আইএস-এর প্রধান আবু বকর আল-বাগদাদিকে হত্যা করা হয়েছে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের এই দাবির বিষয়ে সংশয় প্রকাশ করেছে রাশিয়া।

বাগদাদিকে হত্যার খবর প্রচার করতে গিয়ে যেসব পরস্পরবিরোধী তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে তার প্রতি ইঙ্গিত করে মস্কো ওই সংশয় প্রকাশ করেছে। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে এ কথা জানানো হয়েছে।

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, সিরিয়ার ইদলিব প্রদেশে আবু বকর আল-বাগদাদির গোপন আস্তানায় অভিযান চালানোর যে দাবি যুক্তরাষ্ট্র করেছে সে সম্পর্কে কোনো নির্ভরযোগ্য তথ্য মস্কোর হাতে নেই। মার্কিন অভিযান সম্পর্কে পরস্পরবিরোধী তথ্য এই অভিযানের সাফল্য সম্পর্কে সংশয় বাড়িয়ে দিয়েছে।

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে, মার্কিন জঙ্গিবিমান বা মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোটের কোনো জঙ্গিবিমান গত কয়েকদিন ইদলিবে কোনো হামলা চালায়নি।

রবিবার মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বা পেন্টাগনের বরাত দিয়ে পশ্চিমা গণমাধ্যমগুলো দাবি করে, শনিবার রাতে সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় ইদলিব প্রদেশে অভিযান চালিয়ে আইএস নেতা বাগদাদিকে হত্যা করেছে।

এর কয়েক ঘণ্টা পর মার্কিন নিউজ চ্যানেল ফক্স নিউজ দাবি করে, বাগদাদির লাশ মার্কিন সেনাদের হাতে রয়েছে এবং ডিএনএ টেস্টে তার মরদেহ শনাক্ত করা হয়েছে।

অথচ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দাবি করেছেন, মার্কিন অভিযানে আটকা পড়ে বাগদাদি আত্মঘাতী বোমা হামলা চালিয়ে নিহত হয়েছেন এবং তার দেহ এতটা ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে যে তা শনাক্ত করা সম্ভব নয়।

যুক্তরাষ্ট্র, ইসরায়েল ও মধ্যপ্রাচ্যে তাদের মিত্রদের সহযোগিতায় ২০১৪ সালের মাঝামাঝি সময়ে বাগদাদির নেতৃত্বাধীন দায়েশ গোষ্ঠী সিরিয়া ও ইরাকের বিশাল এলাকা দখল করে নেয় এবং নিজেদের দখলীকৃত এলাকাগুলোতে ভয়াবহ অপরাধযজ্ঞ চালায়। পরবর্তীতে ইরানের সামরিক পরামর্শ নিয়ে সিরিয়া ও ইরাকের সেনাবাহিনী পাল্টা অভিযান চালিয়ে দায়েশের হাত থেকে বেশিরভাগ এলাকা পুনরুদ্ধার করে।

আইএস ইরাকের বিস্তীর্ণ এলাকা দখল করে নেয়ার পর আবু বকর আল-বাগদাদি ২০১৪ সালে একবার মসুল শহরে জনসম্মুখে বের হয়েছিলেন। ২০১৯ সালের আগস্ট মাসে তার সর্বশেষ অডিও বার্তা বের হয়। -ডেস্ক