(দিনাজপুর২৪.কম) শত কঠিন পথ পেরিয়ে টেস্ট মর্যাদা পেয়েছে আয়ারল্যান্ড। অথচ আর্থিক সমস্যায় সেভাবে টেস্ট আয়োজন করতেই পারছে না তারা। আগামী মে মাসে দেশের মাটিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট ম্যাচটি বাতিল করেছে ক্রিকেট আয়ারল্যান্ড।

আইসিসির ভবিষ্যৎ সফরসূচি অনুযায়ী, এক টেস্ট, তিন ওয়ানডে ও তিন টি-টোয়েন্টির সিরিজ খেলতে আগামী মে মাসে আয়ারল্যান্ড যাওয়ার কথা বাংলাদেশের।

কিন্তু একটি টেস্ট ম্যাচ আয়োজন করতে আনুমানিক ১ লাখ ইউরো খরচ হয়, যে বিলাসিতা আপাতত দেখাতে পারছে না আইরিশ বোর্ড। সম্ভাব্য টেস্ট ম্যাচটি তাই রূপ নিয়েছে টি-টোয়েন্টি ম্যাচে।

২০১৭ সালে টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার পর এখন পর্যন্ত কেবল তিনটি টেস্ট খেলতে পেরেছে আয়ারল্যান্ড, যার একটি ছিল কেবল দেশের মাটিতে।

ক্রিকেট আয়ারল্যান্ডের প্রধান নির্বাহী ওয়ারেন ডিউট্রম জানিয়েছেন, আইসিসি থেকে তারা প্রত্যাশিত তহবিল পাচ্ছেন না। মালাহাইড ও অন্যান্য মাঠে অস্থায়ী কাঠামোর ব্যবস্থা করতে এবং ঘরের মাঠে ম্যাচ আয়োজন করতে সব মিলিয়ে যা খরচ, তারা সেটি কুলিয়ে উঠতে পারবেন না। এছাড়াও ২০২০ ও ২০২১ সালে পিঠা-পিঠি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এবং ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপের বাছাইপর্বকে সামনে রেখে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে তারা মনোযোগ দিতে চায় বেশি।

তবে আর্থিক সমস্যায় সীমিত ওভারের সব সিরিজও তারা আয়োজন করতে পারছে না। বাংলাদেশ, নিউ জিল্যান্ড ও পাকিস্তানের বিপক্ষে রঙিন পোশাকের সিরিজ থাকলেও বাতিল করা হয়েছে আফগানিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ।

বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট ম্যাচটি আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ ছিল না। এটিও টেস্ট বাতিলের সিদ্ধান্তকে সহজ করেছে কিছুটা।

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট ছাড়াও আইসিসির ভবিষ্যৎ সফরসূচিতে আগামী বছর বাংলাদেশের টেস্ট আছে পাকিস্তানে দুটি, দেশের মাটিতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একটি, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুটি, শ্রীলঙ্কা সফরে তিনটি ও দেশের মাটিতে নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে দুটি। -ডেস্ক