(দিনাজপুর২৪.কম) ৭ উইকেটে ৩০৬ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেছিল বাংলাদেশ। জবাবে ৭ রানের লিড নিয়ে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকা একাদশ। ৮ উইকেটে তারা করে ৩১৩ রান। কিন্তু দ্বিতীয়বার ব্যাটিং প্রস্তুতিতে নেমে ভালো কিছু করতে পারেনি বাংলাদেশ। ইমরুল কায়েস ও সাব্বির রহমানের হাফসেঞ্চুরি বাদে আর কোনও ব্যাটসম্যান নিজেদের মেলে ধরতে পারেনি। ৯ উইকেটে ২৩৫ রানে দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে সফরকারীরা। ২২৮ রানের লিড পায় বাংলাদেশ। কিন্তু শেষদিনের শেষ সেশনে দ্বিতীয় ইনিংসে আর ব্যাট করতে নামেনি স্বাগতিকরা। ম্যাচ হয়েছে ড্র।

তামিম ইকবাল বা সৌম্য সরকার কেউ ব্যাট করতে নামেননি। কোনও উইকেট না হারিয়ে দলীয় ৬ রানে শনিবারের খেলা শুরু করে বাংলাদেশ। ইমরুল কায়েসের সঙ্গে উদ্বোধনী জুটিতে নামা লিটন দাস দিনের তৃতীয় ওভারে আউট হন। মাত্র ২ রানে টিলাদি বোকাকোর শিকার হন তিনি। ৫১ রানের ইনিংস খেলে আউট হন ইমরুল। মুমিনুল হকের সঙ্গে ৭১ রানের জুটি ছিল তার।

দলীয় ৫ রানের ব্যবধানে মুশফিকুর রহিম (৩) ও মুমিনুল (৩৩) শন ভন বার্গের শিকার হন। ৯৬ রানে চার উইকেট হারায় বাংলাদেশ, এই ধাক্কা তারা কাটিয়ে ওঠে মাহমুদউল্লাহ ও সাব্বিরের জুটিতে। যদিও রানের খাতা সমৃদ্ধ করতে পারেননি মাহমুদউল্লাহ। ৫২ রানের জুটি গড়তে তিনি করেন মাত্র ১৫ রান। মেহেদী হাসান মিরাজ ১৪ রান করে আউট হন। ১৭৮ রানে ষষ্ঠ উইকেটটি হারায় সফরকারীরা।

সাব্বির ৬৭ বলে হাফসেঞ্চুরি করে প্রতিরোধ গড়লেও তাকে থামান ভন বার্গ। ৯৮ বলে ৮ চারে ৬৭ রানে বোল্ড হন তিনি। প্রথম ইনিংসেও হাফসেঞ্চুরি করেছিলেন সাব্বির। পরের ওভারে শফিউল ইসলাম রানের খাতা না খুলে বিদায় নেন। ভন বার্গের চতুর্থ শিকার হন তাইজুল (১৪)। তাসকিন আহমেদ ১৫ রানে অপরাজিত ছিলেন। শুভাশীষ রায় খেলছিলেন ৩ রানে। ৬৩ ওভার শেষ হওয়ার পর ইনিংস ঘোষণা করে বাংলাদেশ।