(দিনাজপুর২৪.কম) বরিশালে পুলিশ কনস্টেবলের হাতে তার স্ত্রী সুচনা আক্তার খুন হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। বুধবার রাতে নগরীর ৭নম্বর ওয়ার্ডের হাউজিং এলাকার এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ঘটনার পরপরই স্বামী ইমাম হাসান পলাতক রয়েছে। নিহত সুচনা আক্তার ওই এলাকার আলী হোসেনের মেয়ে এবং নগরীর আবদুর রব সেরনিয়াত কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী। তার স্বামী ইমাম হাসান হাউজিং এলাকার বাসিন্দা ও বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের নায়েক ইসমাইল হোসেনের ছেলে। বর্তমানে তিনি বরিশাল আরআরএফ পুলিশে কনস্টেবল পদে কর্মরত আছেন। সুচনার বাবা অভিযোগ করেছেন- গত দুই বছর আগে বিয়ের পরপরই তার জামাইয়ের পরিবার ৫ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে মেয়েকে নানা ধরনের নির্যাতন করে আসছিলো। এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে একাধিকবার শালিস বিচারও হয়েছিলো। তারপরেও একই দাবিতে নির্যাতন চালিয়ে আসছিলেন সুচনার শ্বশুর পরিবার। এক পর্যায়ে নির্যাতন সইতে না পেরে সুচনা আক্তার কয়েকদিন আগে তার (বাবা) বাড়িতে চলে আসেন। বুধবার রাত ৯টার দিকে স্বামী ইমাম হাসান সুচনা আক্তারকে ডেকে তাদের বাসায় নিয়ে যান। পরে রাত ১১টারদিকে পরে খবর আসে সুচনা গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। আলী হোসেনের দাবি তার মেয়ে আত্মহত্যা করতে পারে না। তার ওপর যৌতুকের জন্য নির্যাতন চালানো হলে মৃত্যু হয়েছে। পরে শ্বশুর পরিবার এটি আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছেন। বরিশাল মেট্রোপলিটন কাউনিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মনিরুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যাওয়ার আগেই লাশ উদ্ধার করে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। পরবর্তীতে সেখান থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। -ডেস্ক