মো. আফজাল হোসেন (দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার চত্তরে উত্তরাঞ্চলের নৃ-গোষ্ঠী ও দলিত-হরিজন জনগোষ্ঠী অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষে গতকাল রবিবার সকাল ১১টায় থেকে ১২টা পর্যন্ত ৬ দফা দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে। মানব বন্ধন শেষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর স্মারাকলিপি প্রদান করেন।  আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে বেসরকারি সংস্থা গ্রাম বিকাশ কেন্দ্র (জিবিকে) সংস্থার সহযোগিতায় ২২টি আদিবাসী গ্রাম উন্নয়ন কমিটি, আদিবাসী, দলিত-হরিজন জনগোষ্ঠীর উদ্যোগে উপজেলা পরিষদ চত্বরে ৬ দফা দাবিতে আয়োজিত ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।
৬ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে দলিত-হরিজন জনগোষ্ঠীর স্থায়ী আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিতসহ বিশুদ্ধ পানীয়জলসহ স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানার ব্যবস্থা, আদিবাসী জনগোষ্ঠীর বিরোধপূর্ণ বিষয়গুলো ন্যয়সংগতভাবে দ্রুত সমাধান করা, উত্তরাঞ্চলের আদিবাসী জনগোষ্ঠীর জন্য পৃথক ভূমি কমিশন গঠন করা, দলিত-হরিজন জনগোষ্ঠী বিভিন্নভাবে অধিকার বঞ্চিত হচ্ছেন। দলিত-হরিজন জনগোষ্ঠীর জন্য ভিজিএফ, ভিজিডি, ১০০দিনের কর্মসূচি, বয়স্ক ও বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা মাতৃকালীন ভাতার জন্য বিশেষ কোটা প্রথা চালু করা ও দলিত-হরিজন গোষ্ঠীর নির্ধারিত কোটায় চাকরিসহ অন্যান্য চাকরিতে প্রবেশের সুযোগ সুবিধা সৃষ্টি করা।
মানবন্ধন কর্মসূচি চলাকালে ৬ দফা দাবির প্রতি সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন ইউপি চেয়ারম্যান মো. মানিক রতন, উপজেলা এডভোকেসী প্লাটফর্ম কমিটির সভাপতি প্রভাষক অমর চাঁদ গুপ্ত অপু, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. আখতারুজ্জামান, গ্রাম বিকাশ কেন্দ্র (জিবিকে) আলো প্রকল্পের প্রকল্প ব্যবস্থাপক নূরুল আলম শুভ, বিজিকে উপজেলা ব্যবস্থাপক সাদিয়ার রহমান, জিবিকে বাজার উন্নয়ন কর্মকর্তা মনোয়ার হোসেন, ফুলবাড়ী প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আশরাফ পারভেজ, ফুলবাড়ী থানা প্রেসক্লাবের সভাপতি আফজাল হোসেন,আমাদের সময় প্রতিনিধি ওয়াহিদুল ইসলাম ডিফেন্স, মাইটিভি প্রতিনিধি ফিজারুল ইসলাম ভূট্টু, দৈনিক তৃতীয় মাত্রা প্রতিনিধি ও সাপ্তাহিক দেশ মা’র স্টাফ রিপোর্টার প্লাবন গুপ্ত শুভ, ফুলবাড়ী থানা প্রেস ক্লাব এর সাধারন সম্পাদক ও দৈনিক বগুড়া প্রতিনিধি আশরাফুল আলম, আদিবাসী নেতা মি. সোম কিস্কু, বিনয় বেসরা, তারামনি বাঁশফোঁড়, ভারত মুর্মু প্রমূখ।
মানববন্ধন কর্মসূচিতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার দু’শতাধিক আদিবাসী ও দলিত-হরিজন জনগোষ্ঠীর নারী-পুরুষ ও বিভিন্ন পর্যায়ের শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।
শেষে ৬দফা দাবি সম্বলিত একটি স্মারকলিপি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর প্রদান করা হয়।