মোঃ আফজাল হোসেন (দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে স্বামীর অনুপস্থিতে আদিবাসী গৃহবধু ভেনী বাস্কে(৩৩) এর শ্লীলতাহানীর চেষ্টাকালে এগিয়ে আসা গ্রামবাসীদের নামে,একাধিক মামলার ওয়ারেন্টভূক্ত আসামী মোঃ রুহুল আমিন মানিক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রাণীর চেষ্ঠা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
রুহুল আমিন মানিক এর ভাই মোঃ মামুনুর রশীদ এর মামলার আসামী ও এলাকাবাসীরা জানায়,চলতি সনের ৩ এপ্রিল আলাদীপুর ইউনিয়নের বাসুদেবপুর সূর্যপাড়া আদিবাসী মহল্লার এলেসিউচ হাসদা (৩৮) এর স্ত্রী ভেনী বাস্কে (৩৩) তার ১৮ বছরের একটি মেয়েসহ সে নিজ বাড়িতে অবস্থান করছিল। তার স্বামী জীবিকার তাগিদে বাইরে থাকার সুযোগে পার্শ্ববর্তী বাসুদেবপুর গ্রামের মোঃ রুহুল আমিন মানিক আনুমানিক সন্ধ্যা ৭টায় তার বাড়িতে ঢুকে তাকে বিভিন্নভাবে হয়রাণীর চেষ্টা করে। এসময় সে চিৎকার করলে তার চিৎকারে সূর্যপাড়া গ্রামের লোকজন একত্রিত হয়ে মোঃ রুহুল আমিন মানিককে আটকের চেষ্ঠা করে। কিন্তু মোঃ রুহুল আমিন ওরফে মানিক এসময় স্থানীয় গ্রামবাসীদের সাথে মারামারীতে লিপ্ত হয় এবং ওই আদিবাসী গৃহবধুর চাচাশশুর কার্ণেলিউস এর মাথায় আঘাত করে রক্তাত্ত করে। এঅবস্থায় গ্রামের সাধারণ মানুষ ্উত্তেজিত হয়ে মোঃ রুহুল আমিন মানিককে মারপিট করলে ১৭ এপ্রিল তার ভাই মোঃ মামুনুর রশীদ বাদী হয়ে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিট্রেট আমলী আদালত(ফুলবাড়ী),দিনাজপুরে ১১জনকে বিবাদী করে একটি অভিযোগ দায়ের করে। অভিযোগটি বিজ্ঞ আদালত আমলে নিয়ে অফিসার ইনচার্জ ফুলবাড়ীকে থানায় এজাহার হিসেবে গণ্য করার আদেশ দেন। এরই প্রেক্ষিতে ফুলবাড়ী থানা ২৪এপ্রিল বাসুদেবপুর গ্রামের মোঃ মকবুল হোসেন এর ছেলে মোঃ এনামুল হক(৪২) ও মোঃ একরামুল হক(৩৯),বাসুদেবপুর(নতুনপাড়া)গ্রামের মোঃ সিরাজুল ইসলাম এর ছেলে মোঃ মাহামুদ হক(৩৬) ও বাসুদেবপুর(সূর্যপাড়া) গ্রামের মৃত রাম কিসকুর ছেলে পাতরাস কিসকু(৩৭),মৃত গণেশ কিসকুর ছেলে কর্ণেলিউশ কিসকু(৪৫),গণেশ কিসকুর জামাই বেনজামিন সরেন যাদু(৪৭),সারজিউশ কিসকুর ছেলে আল বেনুশ কিসকু(২২),বেনজামিন সরেণ যাদুর ছেলে সোহেল সরেণ(২৩),ধানিয়েল হেমরমের ছেলে সজিব হেমরম(২২),এলারুস কিসকুর ছেলে হিটলার কিসকু(২৫) ও মৃত থমাস সরেণের ছেলে এন্ড্রকুশ (৩৮) এর নামে বিভিন্ন ধারায় মামলাটি রজু করেন। যার মামলা নং-২৬ তারিখ-২৪/০৪/১৯ ইং।
এদিকে, মামলার আসামীরা অভিযোগ করে বলেন,মামলার বাদীর ভাই মোঃ রুহুল আমিন মানিক একজন চিহ্নিত অপরাধী তার নামে একাধিক মামলাসহ কারাদন্ডাদেশ থাকলেও সে রাতে এলাকায় এসে বিভিন্নভাবে আমাদেরকে হুমকি-ধামকি দেয় ও আমাদের মা-বোনদের শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করে। আমরা ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী ডাকাত মানিক এর অত্যাচারের শিকার,কিন্তু একাধিক মামলার ওয়ারেন্টভূক্ত সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী মোঃ রুহুল আমিন মানিক সুকৌশলী সেদিনের প্রকৃত ঘটনাকে ধামাচাপা দিতে তার ছোট ভাইকে বাদী করে আমাদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রাণী করছে। তারা আইন প্রযোগকারী কর্মকর্তাদের কাছে তাদের নামে করা মিথ্যা মামলার প্রত্যাহার ও পলাতক আসামী মোঃ রুহুল আমিন মানিক এর সঠিক সকল মামলার সঠিক তদন্তের দাবী জানান।
এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই কমল চন্দ্র রায় জানান,মোঃ রুহুল আমিন মানিক নিঃসন্দেহে একজন চিহ্নিত অপরাধী,আইন অনুযায়ী তার বিচার হবে কিন্তু তাই বলে কোন ব্যক্তির আইন নিজের হাতে তুলে নেবার কোন অধিকার নেই।