(দিনাজপুর২৪.কম) সাফ অনূর্ধ্ব ১৬ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশীপের প্রথম সেমিফাইনালে আফগানিস্তানকে ১-০ গোলে হারিয়ে এ টুর্ণামেন্টে প্রথমবারের মতো ফাইনালে পৌঁছে গেছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। এর আগে আজ রবিবার ১ম সেমিফাইনালে জয়ের লক্ষ্য নিয়ে শক্তিশারী আফগানিস্তানের মুখোমুখি হয় লাল-সবুজের দল। আজ বিকেল ৩টায় মিলেট স্টেডিয়ামে খেলাটি শুরু হয়েছিল। এদিকে আজ সন্ধ্যা ৬টায় ভারত বনাম নেপালের মধ্যকার দ্বিতীয় সেমিফাইনালে জয় দলের মুখোমুখি হবে স্বাগতিকরা। আগামী ১৮ আগস্ট মঙ্গলবার বিকেলে একই স্টেডিয়ামে ওই ফাইনাল ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে। আগের ২টি আসরে সেমিফাইনালের গণ্ডি পেরোতে না পারা শাওন ও খলিলরা শুরু থেকেই প্রতিপক্ষের উপর প্রভাব বিস্তার করে খেলা থাকে। তবে প্রথম সুযোগ অবশ্য ছিলো আফগানদেরই। ৩৪ মিনিটে ডিফেন্ডারদের ভুলে পেনাল্টি পায় আফগানরা। তবে আবু নাসেরের নেয়া শট বার পোস্টের উপর দিয়ে চলে গেলে সুযোগ কাজে লাগাতে ব্যর্থ এ বারের আসরে পাওয়ার ফুটবল খেলা দলটি।
টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই দুর্দান্ত খেলতে থাকা বাংলাদেশ গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচে শ্রীলংকাকে হারায় ৪-০ গোলে। পরবর্তী ম্যাচে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ভারতকে ২-১ গোলে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমি ফাইনালে জায়গা করে নেয় তারা। খেলার প্রথমার্ধে কোন দল গোল না পেলেও বল পজিশনিংয়ে এগিয়ে ছিলো বাংলাদেশই। তবে শেষ মুহূর্তে যোগ হওয়া সময়ের সুযোগ কাজে লাগাতে পারলে এগিয়ে যেতে পারতো বাংলাদেশ। স্ট্রাইকার নিপুর ওই প্রচেষ্টা ডিবক্সে বাধা প্রাপ্ত হলে গোল শূন্য থেকে বিরতিতে যায় ২ দল।
বিরতির পর ফিরে অবশ্য প্রথম সুযোটি আফগানরাই পেয়েছিলো। ৪৮ মিনিটে আবু নাসেরের প্রচেষ্টা রুখে দেয় লাল সবুজের ডিফেন্ডাররা। তবে এরপরই ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। ৫৪ মিনিটে সিলেটের ছেলে সাদের গোলে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। প্রথম প্রচেষ্টায় রাইট উইং দিয়ে নিপু বল নিয়ে এগিয়ে গেলেও গোল করতে ব্যর্থ হন। তবে ফিরতি প্রচেষ্টায় সাদের আফগানদের জালে বল জড়ালে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ।
৭৩ মিনিটে আবারও এগিয়ে যেতে পারতো বাংলাদেশ। স্ট্রাইকার নিপু একক প্রচেষ্টায় আফগানদের জালে বল জড়ালেও অফ সাইডের অজুহাতে তা বাতিল হয়। শেষ পর্যন্ত আর কোনো দল গোল না পেলেও অতিরিক্ত সময়ের ২ মিনিটে বাংলাদেশের দুর্দান্ত প্রচেষ্টা রুখে দেন আফগান গোল রক্ষক। তবে শেষ পর্যন্ত আর কোন দল গোল না পেলে ১-০ গোলে এগিয়ে থেকে সাফ ফুটবল অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে জায়গা করে নেয় লাল সবুজ বাহিনী। -ডেস্ক