(দিনাজপুর২৪.কম) প্রেমিকার অন্যত্র বিয়ে হয়ে যাওয়ায় রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের (রামেক) এক শিক্ষার্থী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। শনিবার দুপুর ১টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃতু্যু হয়। এর আগে তিনি কলেজের পিংকু হোস্টেলের ১২২ নং কক্ষে ফ্যানের সঙ্গে রশি টানিয়ে গলায় ফাঁস দেন।  আত্মহত্যাকারী শিক্ষার্থীর নাম আহসান হাবিব মিল্টন। তিনি রামেকের ২৭তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। মিল্টন কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী থানার সবুজপাড়া গ্রামের হুমায়ুন কবিরের ছেলে।
মিল্টনের সহপাঠীরা জানান, শনিবার সকালে মিল্টনের রুমমেটরা ক্লাস করার জন্য ক্যাম্পাসে যায়। তবে মিল্টন তার রুমেই ছিল। দুপুর ১২টার দিকে মিল্টনের এক রুমমেট এসে রুরের দরজায় বারবার ধাক্কা দিলেও ভেতর থেকে কোনো সাড়া পাওয়া যাচ্ছিলো না। পরে কক্ষের আশপাশের ছাত্ররা এসে দরজা ভেঙ্গে মিল্টনকে উদ্ধার করে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করায়। হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হলে দুপুর ১টার দিকে তার মৃত্যু হয়।
রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শফিকুল ইসলাম অপু জানান, মিল্টনের সাথে তার একই এলাকার এক মেয়ের দীর্ঘদিন থেকে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। মিল্টনের সাথে  মেয়েটির বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু গত ২৫শে মার্চ ওই মেয়ের বাবা জোরপূর্বক মেয়েটিকে অন্যত্র  বিয়ে দেয়। বিয়ের খবর শোনার পর গত মঙ্গলবার বাড়ি যায় মিল্টন। শুক্রবার রাতে বাড়ি থেকে  হোস্টেলে ফিরে এসে এমন কাজ করলো।-ডেস্ক