(দিনাজপুর২৪.কম) বাচ্চার প্রসব করাতে গিয়ে সদ্যজাতের মাথা ছিঁড়ে ফেলার অভিযোগ উঠল এক ডাক্তারের বিরুদ্ধে। মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের মুর্শিদাবাদের সামসেরগঞ্জ থানার অনুপ নগর ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে। ঘটনায় প্রসূতির পরিবার চিকিৎসকদের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলেছেন। তবে চিকিৎসকদের দাবি শিশুটি আগেই মারা গিয়েছিল।

জানা যায়, শুক্রবার বিকেল পাঁচটা নাগাদ প্রসব যন্ত্রণা নিয়ে অনুপ নগর ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি হয় সুতির বাহাগল পুরের বাসিন্দা আলতি বিবি। রাতে প্রসব করানোর জন্য তাকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যাওয়া হয়। অভিযোগ সেই সময়েই কর্তব্যরত ডাক্তার অভিজিৎ দাসগুপ্ত প্রসব করাতে গিয়ে সদ্যজাতের মাথা ছিঁড়ে ফেলে। এরপর প্রসূতি আলতি বিবিকে রেফার করে দেওয়া হয় জঙ্গীপুর মহাকুমা হাসপাতালে। সেখানে অবস্থার আরও অবনতি হওয়ায় তাকে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যালে পাঠানো হয়। সামসেরগঞ্জ থানায়  ডাক্তারের নামে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে আলতি বিবির পরিবার। পুলিশ ঘটনার তদন্তও শুরু করেছে।

আলতি বিবির শাশুড়ির অভিযোগ বাচ্চা বের করতে গিয়ে মাথা ছিঁড়ে দিয়েছে ডাক্তার। মুর্শিদাবাদ মেডিক্যালে নিয়ে এসে তার পর বাচ্চা বাকি অংশ বের করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। স্বামী  জাহাঙ্গীর শেখের অভিযোগ,  “আমি রিপোর্ট আনতে গিয়েছিলাম। তখনি ডাক্তার বাচ্চা বের করতে যায়। যখন আসি তখন একটা ব্যাগ হাতে দিয়ে গাড়িতে রুগি তুলতে দেখি।  পড়ে ওই ব্যাগের মধ্যেই বাচ্চার মাথা দেখেছি। ”

তবে ঘটনা সম্পর্কে চিফ মেডিক্যাল অফিসার নিরুপম বিশ্বাস জানিয়েছেন গর্ভাবস্থায় চিকিৎসক এর পরামর্শ না নেওয়ার কারণে এই ঘটনা ঘটেছে। তিনি  বলেন, “ওই প্রসূতি ঝাড়খন্ডের। প্রসবের আগে কোন রকম টিটেনাশের ইনজেকশন নেয়নি। কোনরকম চিকিৎসাও করানো হয়নি। ” তার অভিযোগ শিশুটি তিন থেকে চার দিন আগেই পেটের ভিতরে মারা গিয়েছিল। তিনি আরও বলেন,  “এই অবস্থায় ডাক্তারদের কর্তব্য মৃত শিশুটিকে পেট ত্থেকে বের করে আনা।  পেট থেকে মৃত শিশু বার করতে না পারলে মা মারা যেত। কর্তব্যরত ডাক্তার সেই কাজটাই করেছেন। -ডেস্ক

সূত্র: কলকাতা টোয়েন্টিফোর সেভেন