(দিনাজপুর২৪.কম) আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কার্যক্রমে ‘দৃশ্যমান সক্রিয়’ হওয়ার জন্য দপ্তরবিহীন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সৈয়দ আশরাফ আগামী আগস্ট মাস থেকে দলীয় কর্মকাণ্ডে আরও সক্রিয় হবেন বলে প্রধানমন্ত্রীকে আশ্বস্ত করেছেন।

গত রোববার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে গেলে সৈয়দ আশরাফকে দলীয় কার্যক্রমে সক্রিয় হতে বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। রাত সাড়ে ৭টা থেকে ৯টা পর্যন্ত প্রায় দেড় ঘণ্টার একান্ত এই বৈঠকে নানা প্রসঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা হয় বলে জানা গেছে। গণভবন ও সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ঘনিষ্ঠ কয়েকজন দিনাজপুর২৪.কমলের সঙ্গে আলাপকালে জানিয়েছেন, গত রোববার রাত সাড়ে ৭টার দিকে গণভবনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছেন সৈয়দ আশরাফ। দুই নেতা গণভবনের দোতলায় দীর্ঘক্ষণ বৈঠক করেছেন।

এ সময় সেখানে আর কেউ উপস্থিত ছিলেন না। তারা বেশ কিছু সময় বাংলাদেশ এবং দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যকার ক্রিকেট খেলাও উপভোগ করেছেন। বৈঠক শেষে বেরিয়ে যাওয়ার সময় সৈয়দ আশরাফকে বেশ উৎফুল্ল দেখা গেছে। ছোট ভাই সৈয়দ মনজুরুল ইসলামের বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আগামীকাল বুধবার সকালে লন্ডন যাচ্ছেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। ৩০ জুলাই তার দেশে ফেরার কথা। লন্ডনে তার স্ত্রী শিলা ইসলাম শিক্ষকতা ও একমাত্র সন্তান লাইমা ইসলাম ব্যাংকিং পেশায় নিয়োজিত রয়েছেন। বৈঠকে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড নিয়েও কথা বলেছেন দুই নেতা।

এদিকে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ দিনাজপুর২৪.কমকে জানিয়েছেন, রংপুর বিভাগের ৯টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে শুধু গাইবান্ধায় সম্মেলন হয়নি। রাজশাহী বিভাগের ৯টি সাংগঠনিক জেলার সম্মেলন সম্পন্ন হয়েছে। খুলনা বিভাগের ১১টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে চুয়াডাঙ্গায় সম্মেলন হয়নি। বরিশাল বিভাগের ৭টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে সম্মেলন হয়নি পিরোজপুর, ভোলা ও ঝালকাঠিতে। সিলেট বিভাগের ৫টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে সুনামগঞ্জ ও মৌলভীবাজারে সম্মেলন হয়নি। চট্টগ্রাম বিভাগের ১৩টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে সম্মেলন হয়নি চাঁদপুর, কুমিল্লা ও কক্সবাজারে।

ঢাকা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন জানিয়েছেন, ঢাকা বিভাগের ২১টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে ১৩টিতে সম্মেলন হয়েছে। এখন সম্মেলনের অপেক্ষায় রয়েছে রাজবাড়ী, ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, শরীয়তপুর, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা ও কিশোরগঞ্জ।(ডেস্ক)