স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আবদুল মান্নান। পুরোনো ছবি

(দিনাজপুর২৪.কম) সরকার টিকাদান পরিকল্পনায় কিছু পরিবর্তন আনার কথা ভাবছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আবদুল মান্নান। তিনি বলেছেন, ‘এ পর্যন্ত যে পরিমাণ টিকা পাওয়া গেছে, তার ব্যবহার নিশ্চিত করতে চায় সরকার। প্রথম দফায় ৩৫ লাখ মানুষকে টিকা দেওয়া হবে।’ আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে তিনি এসব কথা বলেছেন।

সরকারের হাতে এখনো ৭০ লাখ টিকা আছে। আগের পরিকল্পনা ছিল এ মাসে ৬০ লাখ মানুষকে টিকা দেওয়া হবে। কিন্তু হঠাৎ এ সংখ্যা ৩৫ লাখে নেমে এল। কারণ জানতে চাইলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আবদুল মান্নান বলেন, ‘আমরা যে টিকা পেয়েছি, তার ব্যবহার নিশ্চিত করতে চাই। আমরা ৩৫ লাখ মানুষের টিকা দেওয়া নিশ্চিত করতে চাই। এরপর আরও টিকা এলে সেভাবে মানুষকে দেওয়া হবে।’

এদিকে করোনার টিকার নিবন্ধন সহজ করার উদ্যোগ নিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। অধিদপ্তরের নতুন এক নির্দেশনায় বলা হয়েছে, অগ্রাধিকারভিত্তিতে টিকা পেতে প্রত্যেককে জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বরের মাধ্যমে সুরক্ষা ওয়েবসাইটে গিয়ে নিবন্ধন করতে হবে। যাদের জাতীয় পরিচয়পত্র আগে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে, তাদেরও নিবন্ধন নিতে হবে।

নির্দেশনায় আরও বলা হয়, ৫৫ বছরের বেশি বয়সী সব নাগরিক নিবন্ধন করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার তালিকায় থাকার প্রয়োজন নেই। এর কম বয়সী ব্যক্তিদের মধ্যে যারা অগ্রাধিকার তালিকায় রয়েছেন, কিন্তু জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে নিবন্ধন করতে পারছেন না, তাদের প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ই-মেইল করে জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর পাঠাতে হবে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে গত বছরের ৮ মার্চ প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। দেশে সংক্রমণ শুরুর দিকে রোগী শনাক্তের হার কম ছিল। গত মে মাসের মাঝামাঝি থেকে সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। -ডেস্ক