বরগুনার তালতলী উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. হাবিবুর রহমান কামাল মোল্লা

(দিনাজপুর২৪.কম) বরগুনার তালতলী উপজেলায় ছবি তুলতে বাধা দেওয়ায় এক নারীকে প্রকাশ্যে রাস্তায় ফেলে পিটিয়ে গুরুতর আহত করার অভিযোগ উঠেছে উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. হাবিবুর রহমান কামাল মোল্লা ও তার দুই সহযোগীর বিরুদ্ধে। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সদর রোডের সামনে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত শ্রীসাগর নামের একজনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করেছে পুলিশ।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী এবং ওই নারীর পরিচিত জলিল বলেন, ‘আমি আর রোজিনা আপা সাতক্ষীরা দধি ঘরে বসে দধি খাচ্ছিলাম। এমন সময় উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক কামাল মোল্লার পালিত সন্ত্রাসী শ্রীসাগর ও সাগর মিয়া নামের দুই বখাটে এসে আমাদের ছবি তুলছিল। তাদের ছবি তুলতে রোজিনা আপা নিধেষ করলে তারা আপার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে মারধর শুরু করে। এর কিছুক্ষণ পরই কামাল মোল্লা এসে রোজিনা আপাকে টেনে-হিঁচড়ে রাস্তায় ফেলে বেধরক মারধর করে। শতশত লোক দাঁড়িয়ে দেখলেও যুবলীগ নেতার ভয়ে কেউ তাকে রক্ষায় এগিয়ে আসেনি।’

এ ঘটনায় ওই রাতেই রোজিনা আক্তার বাদী হয়ে তালতলী থানায় যুবলীগ নেতা কামাল মোল্লাসহ তিনজনকে আসামি করে থানায় মামলা করেন। মামলার আসামি কামাল মোল্লা বলেন, ‘এ ঘটনার সঙ্গে আমার কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। আমাকে মিথ্যাভাবে জড়ানো হয়েছে।’

তবে এই যুবলীগ নেতা অপর দুই আসামি শ্রীসাগর ও সাগর মিয়ার পক্ষ অবলম্বন করে বলেন, ‘এক সাগরের হাতে ব্যন্ডেজ, সে কীভাবে ওই নারীকে মারধর করল।’

এ বিষয়ে বরগুনা জেলা যুবলীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান মহারাজ বলেন, ‘এ বিষয়টি আমি জানি না। অভিযোগ পেলে দ্রুত সময়ের মধ্যে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমার দলে কেউ বদনাম করবে এমন কারও দলে জায়গা হবেনা।’

এ বিষয়ে তালতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কামরুজ্জামান বলেন, ‘এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। শ্রীসাগর নামে এক আসামিকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। অপর আসামিদেরকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।’ -ডেস্ক