(দিনাজপুর২৪.কম) গত শুক্রবার টাঙ্গাইলের কালিহাতিতে পুত্রের সম্মুখে সামনে মাকে বিবস্ত্র ও ধর্ষণ আদিম বর্বরতাকেও ছাড়িয়ে গেছে বলে অভিমত প্রকাশ করে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া আজ রবিবার এক বিবৃতিতে গভীর উদ্বেগ-উৎকন্ঠা প্রকাশ করে বলেছেন, “সমগ্র দেশব্যাপী হত্যা, গুম ও ধর্ষণের ব্যাপক বিস্তার প্রশাসনে সরকারের চরম নিয়ন্ত্রণহীনতারই পরিচয় বহন করছে। এ ধরনের ন্যাক্কার জনক ঘটনার প্রতিবাদী জনতার উপর পুলিশের গুলি করে হত্যার ঘটনা মহান মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের আত্মার সাথে প্রতরনা।
বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় বলেছেন, লাখো শহীদ আর এক সাগরের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীন বাংলাদেশের জনগনের রক্ত-ঘাম করা অর্থে লালিত পুলিশই এখন জনগনের বুকে গুলি করে হত্যা করে, আবার হত্যার পর জনগনের বিরুদ্ধেই মামলা দায়ের করে। এসব কিশের ইঙ্গিত বহন করে। এভাবে একটা স্বাধীন রাষ্ট্র চলতে পারে না। নারী নির্যাতনের বিচার চাইতে গিয়ে পুলিশের গুলিতে জীবন দেয়ার জন্য এক সাগরের রক্তের বিনিময়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হয় নাই। প্রতিনিয়ত মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বলে যারা মুখে ফেনা তুলছেন তাদের শাসনামলেই এই ধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনা প্রমান করে আসলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে তারা ক্ষমতায় যাবার হাতিয়ার হিসাবে ব্যাবহার করলেও প্রকৃত অর্থে সেই চেতনায় বিশ্বাস করে না।
গত শুক্রবার নারী নির্যাতনের বিচারের দাবিতে সমবেত জনতার ওপর কালিহাতী পুলিশের গুলিবর্ষণের তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও ক্ষোভ জানিয়ে নেতৃদ্বয় সরকারের উদ্দেশ্যে  বলেন, অবিলম্বে এই হত্যাকাণ্ডের বিচার বিভাগীয় তদন্ত এবং দায়ী পুলিশদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।  ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকাবাসীর বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও গ্রেফতাকৃতদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবী জানিয়ে বলেন, পুলিশকে বিরোধী দল দমনে অনৈক কাজে দলীয় ক্যাডারের মত ব্যাবহার করা পরিনতিতেই আজ পুলিশ বাহিনী একের পর এক বিতর্কিত ভূমিকায় অবতীর্ণ হচ্ছে। যার ভবিষ্যত পরিনতি সরকার ও রাষ্ট্রের জন্য ভয়াবহ পরিনতি বহন করে আনতে পারে। এমন ন্যাক্কার জনক ঘটনার পর শুধু স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী নন, সমগ্র সরকারের পদত্যাগ করা উচিত ছিল।  নেতৃদ্বয় বলেন, সরকারকে মনে রাখতে হবে তাই নারী নির্যাতনকারীদের উপর মহান আল্লাহ পাকের লানত অনিবার্য।” -ডেস্ক