(দিনাজপুর ২৪.কম) রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলায় ট্রাকচাপায় ৭ জন নিহতের ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিহত সুমি চক্রবর্তীর (২৮) স্বামী শ্যামল চক্রবর্তী বাদী হয়ে মামলাটি করেছেন। পুলিশ আটক চালক জনাব আলীকে গ্রেফতার দেখিয়ে জেল হাজতে পাঠিয়েছে। পুলিশ তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড চেয়েছে। এ দিকে বুধবার সকালে নিহতদের সৎকার করা হয়েছে।
 পুঠিয়া থানার ওসি শাহরিয়ার খান জানান, মামলায় চারঘাট উপজেলার চক মুক্তারপুর গ্রামের ট্রাক চালক জনাব আলীকে একমাত্র আসামি করা হয়েছে। দুর্ঘটনার পর পরই স্থানীয় জনতা চালক জনাব আলীকে আটক করে গণপিটুনি দেয়। পরে পুলিশ তাকে আটক করে। মঙ্গলবার গভীর রাতে নিহত সুমির স্বামী শ্যামল মামলাটি দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর ওই মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়। এর আগে গণপিটুনিতে আহত হওয়ায় তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়ে। বুধবার দুপুরে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।
 ওসি শাহরিয়ার খান আরো জানান, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবদুর রাজ্জাক ট্রাক চালক জনাব আলীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতের কাছে ৮ দিনের রিমান্ড আবেদন জানানিয়েছেন। বুধবার শুনানি না হওয়ায় তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। ট্রাকটি (যশোর মেট্রো-ট-০২-০১০৫) বর্তমানে থানায় রাখা হয়েছে।
 বুধবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত নিহতদের সৎকার করা হয় পুঠিয়া উপজেলার গাঙ ধোপাপাড়া শ্মশানে।
 পুঠিয়ার শিলমাড়িয়া ইউপি  চেয়ারম্যান সাজ্জাদ হোসেন মুকুল জানান, নিহতদের মধ্যে শ্যামল চক্রবর্তীর স্ত্রী সুমি চক্রবর্তী (২৮), তার ভাই ভ্যানচালক বিদ্যুৎ চক্রবর্তী (৩৫) ও বিদ্যুতের স্ত্রী বৃষ্টি চক্রবর্তীকে (২৮) দাহ করা হয়। নিহত শিশু সুমির ছেলে রুদ্র (৫), সুমির ভাই দিলিপ সরকারের মেয়ে পূজা (১০) ও বিদ্যুতের আরেক ভাই বিধান চক্রবর্তীর ছেলে দ্বীপকে (১০) শ্মশানে কবর দেয়া হয়। নিহত সুমির ভাবি বগুড়ার নন্দিগ্রামের বিচিত্রা রাণীর (৫৫) লাশ নন্দিগ্রামে নিয়ে গেছে তার স্বজনরা।(ডেস্ক)