বিষ্ণুপদ রায় (দিনাজপুর২৪.কম) রেজিষ্ট্রেশন বিহিন মোটরসাইকেল আটক করে টাকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়াকে কেন্দ্র করে জনতার হাতে মারপিট ও আটক থাকার ঘটনায় পুলিশ লাইনে ক্লোজড হওয়া ঠাকুরগাওয়ের পীরগঞ্জ থানার ২ উপ-পরিদর্শক এবং ৪ কন্সটেবলকে গত সোমবার বিকালে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। বরখাস্ত হওয়ারা হলেন এস আই নুর আলম সিদ্দিকি, এস আই মামুন, কন্সটবল জিওভ আহম্মেদ, আব্দুল জলিল, সোহাগ ও মনরঞ্জন। জানা যায়, পীরগঞ্জ থানার এস আই নুর আলম এবং এস আই মামুন সহ পুলিশের ৬ সদস্য গত বৃহস্পতিবার বিকাল ৫ টার দিকে পীরগঞ্জ ও রানীশংকৈল থানার সীমান্তবর্তী গোগর এলাকায় রেজিষ্ট্রেশন বিহিন মোটর সাইকেল আটক করে এবং কয়েকজন দালালের মাধ্যমে টাকার নিয়ে ছেড়ে দেয়। এ ঘটনায় এলাকার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের উপর চড়াও হয়। এক পর্যায়ে তাদের মারপিট দিয়ে গোগর স্কুল মাঠে আটক করে রাখে। পরে পীরগঞ্জ থানার সেকেন্ড অফিসার সফিকুজ্জামান ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের উদ্ধার করার চেষ্টা করে। ব্যর্থ হয়ে সেকেন্ড অফিসার থানায় ফোন করলে পীরগঞ্জ থানার ওসি কেএম শওকত হোসেন সহ পাশ্ববর্তী রানীশংকৈল থানার ওসি সুকুমার মোহন্ত রাত সাড়ে ৭ টার দিকে ঘটনাস্থলে যায়। পরে সেখানে ইউপি চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন ও আবুল কালাম আজাদ সহ স্থানীয় গন্যমান্য লোকের উপস্থিতিতে স্কুল মাঠে এক সালিশ বৈঠক বসে। বৈঠকে পুলিশ ক্ষমা প্রার্থনা করলে রাত সাড়ে ৮ টার দিকে আটককৃতদের ছেড়ে দেয়। পরে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। রাতে সহকারী পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ ঘটনাস্থাল পরিদশর্ন করে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেন। পরে শুক্রবার বিকালে তাদের ঠাকুরগাও পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়। এ বিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর সোমবার বিকেলে তাদের সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। পুলিশ সুপার ফারহাত হোসেন ওই ৬ পুলিশকে বরখাস্ত করার কথা নিশ্চিত করেছেন।