বিষ্ণুপদ রায় (দিনাজপুর২৪.কম) অর্থাভাবে চিকিৎসা বন্ধ হয়ে গেছে ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ পৌর শহরের মিত্রবাটি গ্রামে হৃদপিন্ড ফুটা অবস্থায় জন্ম নেওয়া ৫ বছরের শিশু মন্তাছির বিল্লাহ লাম এর। বিনা চিকিৎসায় ধুকে ধুকে মৃত্যুর দিকে ধাবিত হচ্ছে সে। চিকিৎসকরা বলছেন, ভারতে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করালে বেঁচে যেতে পারে শিশু লাম কিন্তু তার দরিদ্র পিতা-মাতার পক্ষে তা কোন ভাবেই সম্ভব নয়। কারণ এরই মধ্যে সহায় সম্বল বিক্রি করে চিকিৎসা করাতে নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন তার পরিবার। সব কিছু হারিয়েও ছেলেকে সুস্থ্য করাতে পারেনি তার বাবা-মা। চোখের সামনে বিনা চিকিৎসায় ছেলের নিশ্চিত মৃত্যু যন্ত্রনা কুড়ে কুড়ে খাচ্ছে তার বাবা-মা সহ আতœীয় স্বজনদের।
লামের মা সুমি খাতুন জানান, জন্মগত ভাবে তার ছেলে লামের হৃদপিন্ড ছিদ্র। ভালপ ও রক্ত নালীরও সমস্যা আছে। জন্মের পর থেকে বিভিন্ন জায়গায় চিকিৎসা করিয়েছেন তাকে। সব শেষ ঢাকার ন্যাশনাল শিশু হার্ট ফাউন্ডেশনের চিকিৎসক ডাঃ সামসুদ্দিন হকের তত্বাবধানে চিকিৎসা করা হয় তার। তিনি বলেছেন, লামকে ভারতে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করাতে হবে। তবেই সুস্থ্য হয়ে উঠবে লাম। কিন্তু সেখানে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করানোর মত কোন উপায় নেই তাদের। যা কিছু ছিল এরই মধ্যে বিক্রি করে সব শেষ হয়ে গেছে। ছেলেকে নিয়ে এখন বাড়িতে অবস্থান করছেন। টাকার অভাবে বেশ কিছুদিন ধরে তার চিকিৎসা বন্ধ রয়েছে। লামের বাবা অন্যের দোকানের কর্মচারি। যা আয় করেন তা দিয়ে সংসারই চলে না। চিকিৎসাতো দুরের কথা। এ অবস্থায় ছেলেকে নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় রয়েছেন তারা। দু’চোখে ঘুম নেই তাদের। চোখের সামনে ছেলে মৃত্যু দিকে ধাবিত হচ্ছে অথচ তারা কিছু করতে পারছেন না। ছেলের নিশ্চিত মৃত্যুর যন্ত্রনায় এখন তারা কাতর প্রায়।
লামের মা সুমি বেগম তার ছেলের চিকিৎসার জন্য সমাজের বিত্তবানদের সহযোগিতা কামনা করেছেন। একমাত্র বিত্তবানদের সহযোগিতাই বাঁচাতে পারে শিশু লামের জীবন।