(দিনাজপুর২৪.কম) ঠাকুরগাওয়ের পীরগঞ্জে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের (ইউএনও) হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ের অভিশাপ থেকে মুক্তি পেল ঝর্না বেগম নামে ৮ম শ্রেণীর এক স্কুলছাত্রী। গতকাল শুক্রবার সন্ধায় তার বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। ইউএনওর নির্দেশে ঐ বিয়ে বন্ধ করে দিয়েছেন স্থানীয় চেয়ারম্যান কার্তিক চন্দ্র রায়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ ডব্লিউ এম রায়হান শাহ জানান উপজেলার বাশগাড়া গ্রামের হাসেম আলীর নাবালিকা মেয়ে  ও বাশগাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শেণীর ছাত্রী ঝর্না বেগমের সাথে পৌর শহরের গুয়াগাও মহল্লার আমজাদ আলীর ছেলে সাদ্দামের বিয়ের দিন ধার্য ছিল গতকাল শুক্রবার। স্থানীয় মানবাধিকার কর্মী রিপাসহ কয়েকজন তাকে বিষয়টি অবহিত করেন। খবর পেয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যানকে ঐ বিয়ে বন্ধ করার নির্দেশ দেন তিনি। ইউএনওর নির্দেশে চেয়ারম্যান কার্তিক চন্দ্র রায় সন্ধায় ঐ ছাত্রীর বাড়ীতে গিয়ে বিয়ের আয়োজন বন্ধ করে দেন।ইউপি চেয়ারম্যান কার্তিক চন্দ্র রায় বলেন ইউএনও স্যারের নির্দেশে তিনি ঐ বিয়ে বন্ধ করে দিয়েছেন। মেয়ের বাবা-মাকে বুঝিয়ে বলেছেন। তারাও রাজি হয়েছে। সাবালিকা না হওয়া পর্যন্ত তারা আর তাদের মেয়েকে বিয়ে দিবে না বলে অঙ্গিকার করেছেন।