হাবীব ইফতেখার, পার্বতীপুর (দিনাজপুর২৪.কম) প্রাথমিক ও গণশিক্ষা বিষয়ক মন্ত্রি আলহাজ্জ এ্যাড. মোস্তাফিজুর রহমান এমপির মাদক বিরোধী আন্দোলনের অংশ বিশেষ হিসেবে পার্বতীপুর ইসলামপুর থেকে মানব বন্ধন ও গণমিছিলের আয়োজন করা হয়। এলাকায় মাদকের ছোবল থেকে পরিবারের সন্তানদের রক্ষার্থে মা ও বোনেরা অতিষ্ট হয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে এসে মাদক বিরোধী আন্দোলনে অংশগ্রহণ করে।  গত রোববার বিকেল সাড়ে ৫টায় পার্বতীপুরের ইসলামপুর মহিলা সমিতির সামনে ইয়াবা ও হেরোইন ব্যবসায়ী মাদক সম্রাট সাবদারও তার স্ত্রীসহ দুই কণ্যাকে আবাসিক এলাকা থেকে উচ্ছেদসহ গ্রেফতারের দাবীতে মানব বন্ধন শেষে গণমিছিল শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার মহিলা সমিতির সামনে মিলিত হয়। মহিলাদের এই উদ্দ্যেগ দেখে সমাজের সর্বস্তরের আপাময় জনগণ তাদের ডাকে সারা দিয়ে ব্যাপক উদ্ধিপনায় মানব বন্ধনও গণমিছিলে অংশগ্রহণ করেন। এতে সমাজে বিশিষ্ট ব্যক্তিরা বক্তব্যের মাধ্যমে মাদক সম্রাট সাবদার আলীর ইয়াবা ও হেরোইন ব্যবসাসহ তার মেয়েদের দ্বারা অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধও গ্রেফতারসহ এলাকা থেকে উচ্ছেদের দাবী করেন। বক্তব্যে বক্তারা উল্লেখ করে বলেন মাদক সম্রাট সাবদার আলীর দীর্ঘদিন যাবৎ নিজ ঘরে ও ক্যানাডিয়ান বিল্ডিং-এ চৌকিদারীর চাকুরীর আড়ালে ইয়াবা ও হেরোইনসহ দেহ ব্যবসা চালিয়ে আসছে। এতে এলাকাবাসী প্রথম থেকে প্রতিবাদ করে আসছিল ফলে মাদক সম্রাট সাবদার আলী প্রতিবাদকারীদের বিভিন্ন ভাবে হুমকিও মৃত্যুর ভয় দেখিয়ে আসলে এলাকাবাসী তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও পুলিশের কাছে গণঅভিযোগ করলেও অদৃশ্য কারণে তা থেমে যায়। ফলে গত ১১আগষ্ট মাদক সম্রাট সাবদার আলী’র হারিয়ে যাওয়া ইয়াবা ও হেরোইনকে কেন্দ্র করে এলাকার শিশুদের ধরে এনে হুমকি দামকি দেয়। একপর্যায় শিশুদের অভিভাবকরা প্রতিবাদ করলে সে ও তার স্ত্রী মেয়েরা ঘর থেকে হাসুয়া, লোহার রডসহ লাঠিশোঠা নিয়ে  এলাকার বাসীর উপর চড়াও হয়। এরি পরিপ্রেক্ষিতে এলাকাবাসী সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে সঙ্গে নিয়ে রেলওয়ে থানায় গিয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করে। এই ঘটনাকে ধামাচাপা দিতে গিয়ে অভিযোগকারীদের বিরুদ্ধে মাদক সম্রাট সাবদার আলী’র মেয়েকে বাদী করে গত ১৩ আগষ্ট দিনাজপুর কোর্টে ১০৭ ধারায় একটি মামলা দায়ের করে।
বক্তারা বলেন- হেন মিথ্যা মামলা করার পিছনে কেবা কাহারা তাকে মদদ দিয়ে তার ইয়াবা ও হেরোইন ব্যবসাকে চাঙ্গা করতে চায়। তাদেরকে চিহ্নিত করতে হবে। এব্যাপরে এলাকাবাসী এখন চরম আতঙ্কের মধ্য দিয়ে দিন ও রাত্রি যাপন করছে।
এই মানব বন্ধনে বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- প্রাক্তন উপজেলা চেয়ারম্যানের স্ত্রী মোছাঃ রওশন আরা, সংরক্ষিত মহিলা আসনের উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মালেকা জালাল, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সাহিদা বেগম সাহি, পার্বতীপুর ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আতাউর রহমান (সাংবাদিক), পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি ডাঃ সাজ্জাদ হোসেন, সুধি সামাজের আহ্বায়ক হাবিব ইফতেখার হাবিব, আর্ন্তজাতিক মানবাধিকার সাংবাদিক সংস্থা জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক জাহির রায়হান, সামাজিক পরিবেশ ও মানবাধিকার ব্যাস্তবায়ন সংস্থা’র রংপুর বিভাগের সহ পরিচালক আনন্দ মোহন সরকার, সাধারণ সম্পাদক আনসারুল আজাদ, জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক এমদাদুল হক, আওয়ামী শ্রমিকলীগ কেলোকা শাখার সভাপতি কাজী তোফাজ্জল হোসেন তোফা, মাদক মুক্ত কমিটির সহ-সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন, মোহাম্মদ আলী প্রমুখ।