(দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুরের পার্বতীপুরে বরখাস্তকৃত পুলিশের এক এসআই একের পর এক অঘটন ঘটিয়ে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। শুধু তাই নয়, তার বিরুদ্ধে মামলার করায় সেই মামলার বাদী-স্বাক্ষীদের বিরুদ্ধে একের পর এক মামলা করে হেনস্তা করছে।  জানা যায়, উপজেলার পলাশবাড়ি ইউনিয়নের উত্তর ধোবাকল বালাপাড়ার মোফাজ্জল হোসেন সরকারের পুত্র রাসেল মাহমুদ সরকার (৩৫)। কয়েক বছর আগে ঢাকার কাফরুল থানায় চাকুরীরত রাসেল মাহমুদকে অনৈতিক কার্জকলাপের কারণে বরখাস্ত করা হয়। একই গ্রামের মৃত মোহাম্মদ আলীর পুত্র নাজমুল হুদা ১৯৯৭ সালে ধোবাকল মৌজার ১৪৯ দাগের ১৫ শতক জমি দলিলমূলে ক্রয় করে ভোগদখল করে আসছে। গত ২৬ ডিসেম্বর সকালে রাসেল তার লোকজন নিয়ে উক্ত জমি জবরদখলের চেষ্টাকালে নাজমুলের মাতা সহ পরিবারের লোকেরা বাধা দিলে তাদের মারপিট করে আহত করার অভিযোগ রয়েছে। এ ব্যাপারে ৩১ ডিসেম্বর নাজমুলের ভাই মাহফুজার রহমান বাদী হয়ে বরখাস্তকৃত পুলিশের এসআই রাসেল সহ ২২ জনের নামে থানায় মামলা করলে রাসেল মাহমুদ ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। এর কিছুদিন পর গত ১৪ জানুয়ারী রাসেলের স্ত্রী মাহমুদা ওরফে তমা কে মারপিট করে চার মাসের গর্ভপাত ঘটানোর অভিযোগ এনে তমা ২৫ জানুয়ারী বিজ্ঞ আদালতে মামলা (নং ২২/১৮) করে। একই ঘটনার জের ধরে আমিরুল ইসলাম বাদী হয়ে ৯ জনকে আসামী করে গত ৩০ জানুয়ারী বিজ্ঞ আদালতে মামলা (নং ২৫/১৮) করে।
ঘটনায় আরো জানা যায়, উক্ত সম্পত্তির মালিকানা নিয়ে উভয় পক্ষের দ্বন্দ শুরু হলে কয়েকবার থানা পুলিশের বৈঠক বসে। কিন্তু রাসেল মাহমুদের একক জেদের কারনে থানায় কোন মিমাংসা না হওয়ায় জবরদখলের চেষ্টা চালায়। রাসেলের বিরুদ্ধে মামলা করায় সে হেনস্তা করার লক্ষ্যে ঐ মামলার বাদী ও স্বাক্ষীদের আসামী করে। উক্ত বরখাস্ত এসআই রাসেলের বিরুদ্ধে এলাকাবাসী বহু বিবাহের অভিযোগ করে। ভুক্তভোগীরা ঐ এসআইয়ের বিরুদ্ধে সঠিক বিাচারের দাবী জানান এলাকাবাসী।