(দিনাজপুর২৪.কম) পাকিস্তান সুপার লীগের (পিএসএল) দ্বিতীয় আসরের শিরোপা জিতলো পেশোয়ার জালমি। ফাইনালে কোয়েটা গ্লাডিয়েটর্সকে ৫৮ রানে হারালো তারা। টুর্নামেন্টের প্রথম আসরের চ্যাম্পিয়ন ইসলামাবাদ ইউনাইটেড। গতবার ফাইনালে তাদের কাছে হেরে যায় কোয়েটা। এতে টানা দুই মৌসুম ফাইনালে উঠেও শিরোপাশূন্য থাকতে হলো কোয়েটা গ্লাডিয়েটর্সকে। পিএসএলের এবারের আসরে পেশোয়ার জালমির হয়ে খেলেন বাংলাদেশের দুই ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবাল। অন্যদিকে কোয়েটার হয়ে খেলেন মাহমুদুল্লাহ। কিন্তু শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের টেস্ট ম্যাচ থাকার কারণে তারা ফাইনালের আগেই ফেরেন। এতে লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে খেলেননি তারা। তবে বাংলাদেশের ওপেনার এনামুল হক বিজয় খেলেন কোয়েটার হয়ে। একমাত্র ম্যাচ খেলার জন্য পাকিস্তানে যান তিনি। কিন্তু নিজেকে তেমন মেলে ধরতে পারেননি তিনি। এনামুল ৯ বলে ৩ রানে ফেরেন। পাঁচ স্তরের কঠিন নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যে ফাইনাল ম্যাচ শুরু হয়। টস হেরে আগে ব্যাটে গিয়ে শহিদ আফ্রিদি-ড্যারেন স্যামির পেশোয়ার সংগ্রহ করে ৬ উইকেটে ১৪৮ রান। জবাবে পেশোয়ারের বোলারদের তোপে পড়ে ১৬.৩ ওভারে মাত্র ৯০ রানে অলআউট হয় কোয়েটা গ্লাডিয়েটর্স। মামুলি টার্গেট সামনে নিয়ে মাত্র ১৩ রানে তিন উইকেট হারায় কোয়েটা। তবে এরপর সরফরাজ আহমেদ ২২ ও শন আরভিন করেন ২৪ রান। আর শেষের দিকে আনোয়ার আলী করেন ২০ রান। এই তিনজন ছাড়া বাকি আট ব্যাটসম্যানের রান দুই অংকের কোঠা স্পর্শ করেনি। পেশোয়ারের হাসান আলী ১৩ রানে ২ ও মোহাম্মদ আসগর ১৬ রানে নেন ৩ উইকেট। এর আগে পেশোয়ারের হয়ে ১ ছক্কা ও ৬ চারে ৩২ বলে সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান কামরান আকমল। এছাড়া মারলন স্যামুয়েলস ১৯ ও ডেভিড মালান করেন ১৭ রান। আর শেষের দিকে অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি ৩ ছক্কা ও ১ চারে ১১ বলে ২৮ রানে অপরাজিত থাকেন। -ডেস্ক