(দিনাজপুর২৪.কম) পরীক্ষার রেজাল্ট খারপ করায় বকাঝকা করার কারণে কাঁচি ও পিজা কাটার ছুরি দিয়ে মা ও বোনকে হত্যা করেছে ভারতের এক কিশোর। দিল্লির কাছে নয়ডার এই ঘটনায় ওই কিশোর পুলিশের কাছে স্বীকারোক্তি দিয়েছে। গত মঙ্গলবার এই চাঞ্চল্যকর ডাবল মার্ডারের ঘটনা ঘটে। হত্যাকাণ্ডের শিকার হওয়া কিশোরের মায়ের বয়স ৪২ ও বোনের বয়স ১১। পুলিশ জানিয়েছে, ওই কিশোর তা মা ও বোনকে প্রথমে ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে আঘাত করে, এরপরে পিজা কাটার ছুরি ও কাঁচি দিয়ে তাদের হত্যা করে। মায়ের মাথায় ৭টি ছুরিকাঘাত ও বোনের ৫টি ক্ষতচিহ্ন পাওয়া গেছে। এই হত্যাকাণ্ডের পরেই ওই কিশোর বাড়ি থেকে পালিয়ে যান। শুক্রবার রাতে মুঘলসরাইয়ের বারাণসী থেকে বাবার সঙ্গে ফোনে কথা বলার পরে সেখান থেকে ট্র্যাক করে আটক করা হয়।

পুলিশ সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করে জানিয়েছে, মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে মা ও বোনসহ ঘরে প্রবেশ করে ওই কিশোর। এরপর রাত সাড়ে ১১টার দিকে শান্ত ও মোবাইল হাতে তাকে বের হয়ে আসতে দেখা যায়। তার রক্তমাখা পোশাক ঘরের বাথরুম থেকে উদ্ধার করা হয়। কিশোরের বাবা একজন ব্যবসায়ী, ঘটনার সময় তিনি সুরাটে ছিলেন। তার দাদা দাদী পরিবারের সঙ্গে থাকলেও ঘটনার সময়ে তারা শহরের বাইরে ছিলেন। কিশোরের বাবা জানিয়েছেন, ঘর থেকে দুই লাখ রূপিও খোয়া গেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, কিশোরটি পড়াশোনায় দুর্বল এবং এজন্য নিয়মিত বকাঝকা শুনতো। ঘটনার দিনও পড়ালেখার জন্য তার মা বকা দিয়েছিলেন। এর আগে পুলিশ জানিয়ে ছিল সহিংস ভিডিও গেমের প্রভাবে এই হত্যাকাণ্ড ঘটে থাকতে পারে। কিশোরটি গ্যাংস্টার ইন হাই স্কুল নামের একটি গেমে আসক্ত ছিল যেটিতে হত্যা করেও বেকসুর পার পেয়ে যাওয়ার বিষয়টি মুখ্য। -ডেস্ক

সূত্র- এনডিটিভি।