(দিনাজপুর২৪.কম) চলতি বছরের (২০২০ সাল) ডিসেম্বরের মধ্যে পদ্মা সেতুর সব কটি স্প্যান বসানো শেষ করতে পারবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা।

পদ্মা সেতুর মোট ৪১টি স্প্যানের মধ্যে এরই মধ্যে ৩১টি বসানো হয়েছে। চারটি স্প্যান বসানোর জন্য প্রস্তুত রয়েছে। পানির স্রোত কিছুটা কমলেই এগুলো বসানোর কাজ শুরু হবে।

এদিকে এক ভার্চুয়াল সভায় সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল পদ্মা সেতুর কাজের অগ্রগতি সম্পর্কে বলেন, মূল সেতুর প্রায় ৯০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। আর পুরো সেতু প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি ৮১ ভাগের বেশি। বর্তমানে সেতুর ৪ হাজার ৬৫০ মিটার দৃশ্যমান হয়েছে।

প্রকল্প সংশ্লষ্টদের মতে, মহামারি পরিস্থিতি না থাকলে কাজের অগ্রগতি আরও কিছুটা বেশি হতো। বর্তমানে বন্যার কারণে স্প্যান বসানোর কাজ বন্ধ। তবে সেতু ও সেতুসংশ্লিষ্ট অন্যান্য কাজ পুরোদমে এগিয়ে চলেছে। যে ৩১টি স্প্যান বসানো হয়েছে, সেখানে সড়ক ও রেলের স্ল্যাব স্থাপনের কাজ অর্ধেকের বেশি হয়ে গেছে।

পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৗশলী (মূল সেতু) দেওয়ান মো. আব্দুল কাদের জানান, বাকি ১০টি স্প্যানের মধ্যে ৪টি স্প্যান বসানোর জন্য প্রস্তুত রয়েছে। নদীর পানি কমলে এগুলো বসানো হবে। চলতি বছরের মধ্যেই শেষ হবে সবগুলো স্প্যান বসানোর কাজ।

২০২১ সালের জুনের মধ্যে পুরো প্রকল্পের কাজ শেষ করে যান চলাচলের জন্য সেতু খুলে দেওয়ার লক্ষ্য ঠিক করে রেখেছে সরকার। এটি বাস্তবায়নে ব্যয় হচ্ছে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা।

শুরু থেকে গত জুলাই পর্যন্ত ক্রমপুঞ্জিত ব্যয় হয়েছে ২৩ হাজার ৪২৩ কোটি ৬৭ লাখ টাকা। জাজিরা ও মাওয়া প্রান্তে অ্যাপ্রোচ রোডের কাজ শতভাগ শেষ। -ডেস্ক