সুকুমার বাবু দাস (দিনাজপুর২৪.কম) মায়ের আহাজারি হারিয়ে যাওয়া সন্তানের ফিরে পেতে ১৬ বছর ধরে  আর্তনাদ। এখনো সন্তানের সন্ধান পাওয়ার আশায় বুক বেঁধে আছেন মা। মনোয়ারা বেগম বলেন,আমি আশা করছি আমার সন্তান এখনো বেঁচে আছেন একদিন আমার বুকে আসবে।সন্তানের জন্য প্রতিটি মুহুর্ত অপেক্ষা করছি। দশ মাস দশ দিন গর্ভে ধরে লালন পালন করেছি। বুকের উপর ২২ মন মাটি চাঁপা না পড়া পর্যন্ত,কিভাবে ভুলি সেই চিৎকার মা! যেভাবে হঠাৎ করে চলে গেছে হয়তো সেভাবেই একদিন হঠাৎ করে ফিরে আসবে সেই আশায় আমি এখনো সন্তান ফিরে আসার অপেক্ষার প্রহর গুনছি। কতো মানত, কতো পীর-ফকিরের পানি পড়া আর তাবিজ ধারণ করেছিলেন তার হিসেব নেই।পঞ্চগড় সদর উপজেলার কেচেরা পাড়া গ্রামের হায়দার আলীর পুত্র মনজুরুল ইসলাম জুয়েল হারিয়ে গেছে ১৬ বছর আগে।কোন একদিন বন্ধু আনিছুর জুয়েলের মাকে জিজ্ঞেস করে তার কয়টা ছেলে-মেয়ে বলাতেই  কেঁদে উঠে মা। মা বলে জুয়েল বাড়িতে নেই ১৬ বছর ধরে আবার কোথায় পাবো তার ছেলে-মেয়েকে। আমার সাথে জুয়েলের  ৪ বছর আগে কয়েকবার দেখা হয় চট্টগ্রামের অলংকার এলাকায় তার বন্ধু আনিছুর সাথে। সেই সুত্রধরে এখনো তার মা  খোঁজ করে যাচ্ছে অলংকার এলাকায়। এখন অবধি এই দীর্ঘ খোঁজে কোথায়ও পাননি তার সন্তানের কোন খোঁজ! তবুও কেন জানি এই মায়ের বিশ্বাস, হয়তো ফিরে পাবে সেই হারিয়ে যাওয়া সন্তানকে।এমনি কারো কাছে থেকে হয়তো এই অসহায় মা জেনেছিলেন, ‘এখন ফেসবুকে  তথ্য দিলে খুজে পাওয়া যায় হারিয়ে যাওয়া মানুষ’ । সেই কথায় হয়তোবা কিঞ্চিত জন্মানো আশায় তিনি ছুটে আসেন উপজেলার স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে কথা বলার অনুরোধ নিয়ে।মায়ের আর্তনাদে আকাশ বাতাস ভারী হয়ে যাচ্ছে কোনদিন কি সন্তান ফিরে পাবে অভাগী মা।