(দিনাজপুর২৪.কম) নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের পদত্যাগ ও সড়ক দুর্ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তির দাবিতে রাজু ভাষ্কর্যের সামনে মানববন্ধন করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার্থীবৃন্দ। মঙ্গলবার (৩১জুলাই) এ কর্মসূচি পালন করে। মানবন্ধনে শিক্ষার্থী বলেন, আমাদের এ শহরে এখনো একটি নিরাপদ পরিবহন ব্যবস্থা গড়ে ওঠেনি। তাই আমাদের জীবনের আশঙ্কা নিয়ে চলাফেরা করতে হয়। দুর্ঘটনায় কেউ নিহত হয় তার কোন বিচার হয় না। তারেক মাসুদ- মিশুক মুনির দুর্ঘটনার ক্ষেত্রেও আমরা একই ঘটনা দেখেছি। কিছুদিন আগে এক এমপিপুত্র গাড়িচাপা দিয়ে পথচারীকে হত্যা করে। তারও কোন বিচার হয়নি। মানুষের মৃত্যু এখন স্বাভাবিক ঘটনায় পরিণত হয়েছে। আমাদের মন্ত্রীরা এগুলো নিয়ে হাসাহাসি করে। আমরা নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের বক্তব্য প্রত্যাহার করে ক্ষমা চাওয়ার আহবান জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে পদত্যাগের দাবি জানাচ্ছি।

মীম আরাফাত মামুন নামে শিক্ষার্থী বলেন, বাংলাদেশে প্রতিদিন গড়ে ৫৬ জন মানুষ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়। এগুলোকে আর দুর্ঘটনা বলার সুযোগ নেই। এগুলো হত্যাকাণ্ড। আমরা এর সাথে জড়িতদের কঠোর শাস্তির দাবি জানাই।

উল্লেখ্য, গত ২৯ জুলাই শহীদ রমিজ উদ্দিন কলেজের শিক্ষার্থী আব্দুল করিম ও দিয়া খানম ক্লাস শেষে বাড়ি ফেরার পথে তাদের কলেজের সামনেই বাসচাপায় নিহত হন। এ বিষয়ে পরিবহন নেতা ও নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি হেসে হেসে উত্তর দেন। এসময় তিনি বলেন, ভারতের মহারাষ্ট্রে একটা গাড়ি অ্যাকসিডেন্ট করে ৩৩ জন মারা গেছে। আমরা যেভাবে এগুলো নিয়ে কথা বলি, সেখানে কি কেউ এভাবে কথা বলে?

শাজাহানের খানের এমন বক্তব্যের প্রতিবাদ ও ঔ সড়ক দুর্ঘটনার সাথে জড়িত বাসচালক ও কর্তৃপক্ষের শাস্তির দাবিতে প্রায় অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী রাজু ভাষ্কর্যের সামনে সমাবেশ করে। এসময় তারা দুর্ঘটনার ঘটনায় ছাত্রদের দেয়া ৯ দফা দাবির সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে।

পরে তারা আরো তিনটি দাবি জানান। দাবিগুলো হল-
১. দুর্ঘটনার সাথে জড়িত কর্তৃপক্ষ ও বাসচালকদের দ্রুত বিচার নিশ্চিত করতে হবে।
২. নৌমন্ত্রী শাজাহান খানকে তার বক্তব্য প্রত্যাহার করে ক্ষমা চাইতে হবে এবং পদত্যাগ করতে হবে।
৩. দুর্ঘটনা প্রতিরোধে কঠোর আইন প্রণয়ন করতে হবে। সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী আবু রায়হান খান শিক্ষার্থীদের পক্ষে দাবিগুলো উত্থাপন করেন। -ডেস্ক