(দিনাজপুর২৪.কম) বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে উদ্দেশ্য করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ফখরুল সাহেব এখন জ্যোতিষী হয়ে গেছেন। আসন ভাগ করেন তিনি। নির্বাচনটা হোক তারপর বুঝবেন কত ধানে কত চাল। এরপর দেখবেন বিএনপি কোথায় যায়।

শুক্রবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুরে মানিকগঞ্জে দলের সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন উপলক্ষে আয়োজিত প্রতিনিধি সভায় তিনি এসব কথা বলেন।এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন এমপি, মমতাজ বেগম এমপি ও নাঈমুর রহমান দুর্জয় এমপি। অনুষ্ঠানে মানিকগঞ্জের তিন এমপি তাদের সদস্য পদ নবায়ন করেন। এছাড়া কয়েকজন নতুন সদস্যপদ গ্রহণ করেন।

মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মহীউদ্দীনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালামের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন, দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট আব্দুল মান্নান খান এমপি, উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য মুকুল বোস, দফতর সম্পাদক ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ, দলের কেন্দ্রীয় সদস্য আক্তারুজ্জামান, সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী।

ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, দল আর পকেট ভারি করার জন্য দলে কোনো খারাপ চরিত্রের লোককে টানবেন না। সদস্য সংগ্রহের নামে চিহ্নিত চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী, ভূমি দস্যু, মাদকাসক্ত ও স্বাধীনতাবিরোধী কোনো ব্যক্তিকে দলে না নেয়ার নির্দেশও দেন তিনি।

নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, ঘরের মধ্যে ঘর করবেন না। মশারির মধ্যে মশারি খাটাবেন না। খারাপ লোকদের দলে টানবেন না। নমিনেশন জরিপ হচ্ছে। নেত্রীর কাছে জরিপ রিপোর্ট জমা আছে। প্রতি তিনমাস পর পর জরিপ রিপোর্ট যাচ্ছে। যিনি জনগণের কাছে বেশি গ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন, শেখ হাসিনা তাকেই মনোনয়ন দিবেন।

জনগণের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘দেশে অনেক উন্নয়ন হয়েছে। আপনাদের খারাপ ব্যবহারের কারণে দলের সুনাম ম্লান হয়ে যায়, এমন কাজ থেকে বিরত থাকুন। দলের নেতাদের সম্পর্কে অপপ্রচার না করে, উন্নয়নের কথা জনগণকে বলুন।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপির আন্দোলনের নামে দফায় দফায় হুমকি দিচ্ছে। দেখতে দেখতে তাদের আন্দোলন নয় বছর পার হয়ে গেছে।এখন আন্দোলনে ব্যর্থ্য হয়ে বিএনপি দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে।’ -ডেস্ক