(দিনাজপুর২৪.কম) বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে হত্যার প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম গত ৪৮ ঘণ্টায়ও শিক্ষার্থীদের সাথে দেখা না করায় তার দপ্তরসহ সকল একাডেমিক ভবনে তালা দেয় শিক্ষার্থীরা। এমনকি প্রধান ফটকেও তালা দেয়। একই সাথে আসন্ন ভর্তি পরীক্ষাসহ সকল একাডেমিক কার্যক্রম মামলার চার্জশিট দেয়ার আগ পর্যন্ত বাতিল করার দাবি জানায় তারা।

এরপর শিক্ষার্থীদের প্রবল দাবি ও আন্দোলনের তোপে পড়ে ফাহাদ হত্যার প্রায় ৪৮ ঘণ্টা পর নিজ কার্যালয়ে আসেন ভিসি (উপাচার্য) অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম। সেইসঙ্গে আটটি হলের প্রোভোস্টদের নিয়ে জরুরি বৈঠকেও বসেন তিনি। বৈঠক শেষে শিক্ষার্থীদের সামনে এলেই ভিসিকে অবরুদ্ধ করে তারা। এরপর গতকাল রাত ৯টা ৩৫ মিনিটে উপাচার্য কার্যালয়ের সবগুলো তালা খুলে দেন শিক্ষার্থীরা।

এর আগে বুয়েট ভিসি বলেন, আমি তোমাদের অভিভাবক, তোমরা আমার সন্তান। আবরারের সাথে যে ঘটনাটি ঘটেছে সেটা অনাকাঙ্ক্ষিত। এ কথায় ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে শিক্ষার্থীরা। তারা বলেন, এটা একটা খুন, আপনাকে স্বীকার করতে হবে। এসময় শিক্ষার্থীদের শান্ত হয়ে কথা শুনতে বলেন ভিসি সাইফুল ইসলাম।

শিক্ষার্থীরা শান্ত হলে ভিসি বলেন, আমি শিক্ষামন্ত্রী ও উপমন্ত্রীর সাথে কথা বলেছি। তারা দেশের বাইরে আছেন। সেখান থেকে তারা যেভাবে নির্দেশনা দিচ্ছেন আমি তা পালন করছি। আমি তোমাদের দাবিগুলো দেখেছি। এসব নিয়ে তোমাদের শিক্ষকদের সাথে কথা হয়েছে। আমি সব দাবি মেনে নিয়েছি।

এসময় কয়েকজন শিক্ষার্থী উত্তেজিত হয়ে ভিসিকে বলেন, আবরার খুন হওয়ার পর আপনি কই ছিলেন? গতকাল কেন এখানে আসেননি? ভিসি বলেন, আমি এখানেই ছিলাম। আমি রাত দেড়টা পর্যন্ত কাজ করেছি। এই বলে ভিসি চলে যেতে চাইলে শিক্ষার্থীরা ‘ভুয়া ভুয়া’ বলে স্লোগান দিতে থাকেন।

এরপর শিক্ষার্থীরা ভিসি ভবনের নিচে তাকে অবরুদ্ধ করে রাখেন। ভিসির সাথে বুয়েটের বিভিন্ন বিভাগের ডিন ও শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। এছাড়া তিনি আরও বলেন, আমি নিজ ক্ষমতায় কিছু করতে পারি না। তবে আবরার হত্যায় জড়িতদের বহিষ্কার করা হবে বলেও বলেন তিনি।

এদিকে গতকাল রাত ৯টা ৩৫ মিনিটে উপাচার্য কার্যালয়ের সবগুলো তালা খুলে দেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় উপাচার্য কার্যালয়ের সামনের প্রহরীরা উপাচার্যের ব্যক্তিগত সহকারীকে তালা খুলে দেওয়ার খবর জানান।

শিক্ষার্থীরা বলেন, আমরা যে তালা দিয়েছিলাম সেই তালা খুলে ফেলেছি এখন উপাচার্য স্যার বের হবেন কিনা সেটা তার নিজের স্বাধীনতা। শিক্ষার্থীরা আজ সকাল দশটায় প্রেস ব্রিফিং করে তাদের পরবর্তী কর্মসূচি জানাবে বলে গণমাধ্যমকে অবহিত করেন। -ডেস্ক