natore-dinajpur24(দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে গুলিবিদ্ধ হয়ে  নাটোরের তিন যুবলীগ কর্মী হত্যার রহস্য উদঘাটনে প্রশাসনকে তিনদিনের সময় বেঁধে দিয়েছেন শফিকুল ইসলাম শিমুল এমপি। নাটোর সদর আসনের এমপি শিমুল বলেন, তিন দিনের মধ্যে নাটোরের তিন যুবলীগ কর্মী হত্যা রহস্য উদ্ঘাটন না করলে নাটোরসহ উত্তরাঞ্চল অচল করে দেওয়া হবে। এর সঙ্গে দলের বা প্রতিপক্ষ কিংবা প্রশাসনের কেউ জড়িত থাকলেও তা খুঁজে বের করতে হবে। শিমুল জানান, এর সাথে যেই জড়িত হোক তাদের খুঁজে বের করে নাটোরের মাটিতেই বিচার করা  হবে। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমরা দেখা করে এর কারণ উদঘাটনের আহবান করেছি তিনিও এ ব্যাপারে আমাদেরকে আশ্বস্ত করেছেন। মঙ্গলবার সকালে শহরের কানাইখালী স্টেডিয়ামে নিহত ৩ যুবলীগ কর্মীর জানাযা পূর্ব সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। জানাযায় দলের বিভিন্ন পর্যায়ের সহস্রাধিক নেতাকর্মী অংশ নেন। এ সময় যুবলীগও প্রশাসনকে তিনদিনের সময় বেঁধে দেয়। এতে বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক মোর্তুজা আলী বাবলু ও পৌর যুবলীগের আহবায়ক সায়েম হোসেন উজ্জল।
এর আগে সোমবার মধ্যরাতে নিহত তিন পৌর যুবলীগ কর্মি রেদওয়ান সাব্বির, আব্দুল্লাহ এবং সোহেলের মৃতদেহ দিনাজপুরে ময়না তদন্তের পর নাটোরে এসে পৌঁছে। মৃতদেহ নাটোরে পৌঁছার পর কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে পরিবার ,স্বজন ও এলাকাবাসী। তবে দলের পক্ষ থেকে এখনও কোন কর্মসুচি পালন হয়নি।
মঙ্গলবার সকাল ১০টায় শহরের কানাইখালী স্টেডিয়াম মাঠে নিহত রেদওয়ান আহমেদ সাব্বির, আব্দুল্লাহ ও সোহেল রানার জানাযা শেষে তাদের গাড়ীখানা কেন্দ্রীয় গোরস্থানে দাফন করা হয়। জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমীন বিপ্লব জানান, দলের পক্ষ থেকে এখনও কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়নি। পরিবারের পক্ষ থেকেও কোন মামলাও হয়নি।
নাটোর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, এখনো কোন মামলা হয়নি তবে পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা করা হবে বলে তিনি শুনেছেন।
গত শনিবার রাতে মাইক্রোবাসে করে নাটোর শহরতলীর তকিয়া বাজার থেকে তিন যুবলীগ কর্মীকে আইনশৃঙ্গলা বাহিনীর পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। সোমবার ভোরে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে মহাসড়কে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। -ডেস্ক