(দিনাজপুর২৪.কম) শরীয়তপুরে ডামুড্যায় মনিকা কেমিক্যাল কোম্পানী নামে জর্দ্দা তৈরী কারখানায় জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তর ৬ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় অভিযান পরিচালনা করে।

এ সময় নকল বিএসটিআই সীল ও ট্রেড মার্ক রেজিস্ট্রেশন নম্বর ব্যবহার করে প্রতিষ্ঠানের উৎপাদিত শরীয়তপুর জর্দ্দা ও তৃপ্তী জর্দ্দা নামে দুইটি পণ্য বাজারজাত করার অপরাধে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অভিযান পরিচালনা করেন শরীয়তপুর জাতীয় ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সুজন কাজী। অভিযানে সহায়তা করেন ডামুড্যা উপজেলা স্যানেটারী ইন্সপেক্টর আলেয়া বেগম ও পুলিশ সদস্যরা।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের শরীয়তপুর কার্যালয় সূত্র জানায়, ডামুড্যা উপজেলার কনেশ্বর এলাকায় মনিকা কেমিক্যাল কোম্পানী নামে একটি জর্দ্দা প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান বিএসটিআই এর অনুমোদন ছাড়া বিএসটিআই’র সীল, ট্রেড মার্ক ও ভূয়া রেজিস্ট্রেশন নম্বর ব্যবহার করে শরীয়তপুর জর্দ্দা ও তৃপ্তী জর্দ্দা নামে দুইটি পন্য বাজারজাত করছে। এই অভিযোগের ভিত্তিতে কোম্পানীর কারখানা ও শো-রুমে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন আইনের ৪৪ ধারায় কোম্পানীর মালিক আলী আজ্জম খানকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

মনিকা কেমিক্যাল কোম্পানীর মালিক আলী আজ্জম খান বলেন, আমি খুব শীঘ্রই বিএসটিআই ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর সংগ্রহ করে বৈধ উপায়ে জর্দ্দা প্রস্তুত ও বাজারজাত করব।

জাতীয় ভোক্তা-অধিকার অধিদপ্তর শরীয়তপুর জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সুজন কাজী বলেন, অভিযান পরিচালনা কালে দেখি মনিকা কেমিক্যাল কোম্পানীর উৎপাদিত শরীয়তপুর জর্দ্দা ও তৃপ্তী জর্দ্দার মোড়কের গায়ে বিএসটিআই সীল ও ট্রেডমার্ক রেজিস্ট্রেশন নম্বর লাগিয়েছে। এই সীল ও নম্বর সঠিক না। এই অপরাধে প্রাথমিক ভাবে মালিককে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এই সময় বিএসটিআই সীল ও ট্রেডমার্ক রেজিস্ট্রেশন সম্বলিত নতুন লেভেল ও মোড়ক জব্দ করা হয়েছে। এই ধরনের অপরাধের পূনরাবৃত্তি হলে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। -ডেস্ক