(দিনাজপুর২৪.কম) একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে ধোঁয়াশা কাটছে না। দশম নির্বাচনে জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি অংশ গ্রহণ করেনি, আগামী নির্বাচনেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচনে দলটি অংশ নেবে কিনা অনিশ্চিত। ফলে একাদশ নির্বাচনও সবদলের অংশ গ্রহণে সুষ্ঠু হবে কিনা অন্ধকারে জনগণ। অনেক মানুষের মনে প্রশ্ন শেষ পর্যন্ত একাদশ নির্বাচন কি সময়মতো হবে, নাকি অন্যকিছু ঘটবে?
এদিকে বিএনপি থেকে বলা হচ্ছে আওয়ামী লীগকে আর ফাঁকা মাঠে গোল দেওয়ার সুযোগ দেওয়া হবে না, এদিকে আওয়ামী লীগ বলছে তারাও ফাঁকা মাঠে গোল দিতে চায় না। সিনিয়র নেতারা দাবি করেছেন গ্রহণযোগ্য একটি নির্বাচন চায় আওয়ামী লীগ। যদিও বিএনপি একদফা দাবি আদায়ের আন্দোলনের প্রস্তুতি নিয়ে রাজনীতির ময়দানে বিচরণ করলেও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতারা আগামী নির্বাচন সংবিধানের আলোকেই করার কথা বলে আসছেন। অন্যদিকে, রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, জাতীয় স্বার্থে বড় রাজনৈতিক দলগুলোকে অবশ্যই নমনীয় হতে হবে। তবে শান্তিপূর্ণ, গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের। তাদের কাজের স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতাই পারে গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের পথপ্রসারিত করতে।
এদিকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বিএনপি আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে, তবে দলীয় সরকারের অধীনে কোন নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না। শেখ হাসিনার অধীনে কোন নির্বাচন বিএনপি মেনে নেবে না বলেও জানান তিনি। সংবিধানের আলোকেই আগামী নির্বাচন হবে-আওয়ামী লীগের নেতাদের এমন প্রতিক্রিয়ার বিষয়ে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, সংবিধান জনগণের জন্যই করা হয়েছে, তবে সেই জনগণই দলীয় সরকারের অধীনে কোনও নির্বাচন মেনে নেবে না। এদিকে রাজপথ ক্রমান্বয়েই শ্লোগানে মুখরিত হচ্ছে, ফিরে পাচ্ছে একই সাথে হাজারো পদচারণার আভাস। দীর্ঘদিন পর বিএনপি ৭ই নভেম্বরকে কেন্দ্র করে রাজধানীতে বড় একটি সমাবেশ করেছে। যেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। আগামী নির্বাচনের জন্য সমাবেশে বেগম খালেদা জিয়া বার্তা দেন দলীয় নেতাকর্মীদের। অপরদিকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির এক নেতা বলেন, বিএনপি অবশ্যই আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে। গত নির্বাচনের মত ভুল আর করবে না, আর যদি সেরকম কিছু করে তাহলে বিএনপিকে চড়া মূল্য দিতে হবে। আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক শ.ম রেজাউল করিম বলেন, বিএনপি মুখে যাই বলুক না কেন আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করবে নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে। বিএনপির সামনে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা ছাড়া বিকল্প কোন পথ নেই জানিয়ে তিনি বলেন, কারো চাপে নয়, আগামী নির্বাচন অবশ্যই সকল দলের অংশগ্রহণে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হবে। আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের। বর্তমান নির্বাচন কমিশন স্বাধীন। তবে শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই আগামী নির্বাচন হবে জানিয়ে তিনি বলেন, বিএনপি আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে এবং সকল দলের অংশগ্রহণেই গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সম্প্রতি, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আমরা ফাঁকা মাঠে গোল দিতে চাই না। আগামী নির্বাচন অবশ্যই সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে। -ডেস্ক