(দিনাজপুর টোয়েন্টিফোর ডটকম) নাইজেরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় মাইদুগুরি শহরের একটি গ্রামে গত শনিবার জঙ্গি হামলায় ১১০ জন নিহত হয়েছে। দেশটির উগ্রবাদী জঙ্গি গোষ্ঠী বোকো হারাম নৃশংস এ হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। দেশটিতে জাতিসংঘ হিউম্যানিটারিয়ান কোঅরডিনেটর এডওয়ার্ড ক্যালন ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ানকে এ তথ্য জানিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, মাইদুগুরি শহরের কাছেই কোশোব নামের ওই গ্রামটির কৃষিজমিতে হামলা চালায় উগ্রবাদীরা। প্রাথমিকভাবে হামলায় ৪৩ জন শ্রমিক নিহতের খবর পাওয়া যায়। পরে এ সংখ্যা বাড়তে থাকে। এডওয়ার্ড ক্যালন বলেন, ‘কমপক্ষে ১১০ জন নিহত হয়েছেন ওই হামলায়।’

তিনি বলেন, ‘নিরীহ বেসামরিক লোকদের বিরুদ্ধে এটিই এ বছরের সবচেয়ে নৃশংস প্রত্যক্ষ হামলা। জঘন্য এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের বিচারের দাবি জানাই।’ জঙ্গিরা ধানের জমিতে কৃষকদের লক্ষ্য করে এ হামলা চালায়। দেশটির বোর্নোর প্রদেশের গভর্নর বাবগানা ওমারা জুলুম গতকাল রোববার নিহত ৪৩ জনের দাফনে অংশ নেন। তিনি বলেন, ‘তল্লাশি অভিযান আবার শুরু হলে এ সংখ্যা বাড়তে পারে।’

সরকার সমর্থক মিলিশিয়া বাহিনী জানিয়েছে, হামলাকারীরা  শ্রমিকদের বেঁধে রেখে গলা কেটে হত্যা করে। নাইজেরিয়ার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের সোকোটো রাজ্যের শ্রমিকরা ১ হাজার কিলোমিটার দূর থেকে উত্তর-পূর্বাঞ্চলের এ এলাকায় কাজের সন্ধানে আসেন। শনিবারের হিসাবে বলা হয়, ওই  ঘটনায় ৬ জন আহত ও ৮ জন নিখোঁজ রয়েছেন।

নাইজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট মোহাম্মাদু বুহারি এ হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়ে বলেছেন, এই হত্যাকাণ্ডে পুরো দেশ আহত হয়েছে। দেশটিতে জাতিসংঘ হিউম্যানিটারিয়ান কোঅরডিনেটর এডওয়ার্ড ক্যালন বলেন, ‘হামলার সময় বেশ কয়েকজন নারীকে অপহরণ করা হতে পারে। তাদের তাৎক্ষণিক মুক্তির দাবি জানাই।’

গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘সম্প্রতি বোর্নো প্রদেশটিতে বিলম্বিত স্থানীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করায় নিরীহ মানুষদের ওপর এ হামলা চালানো হয়েছে। বোকো হারামের হামলায় ওই নির্বাচন একাধিকবার স্থগিত করা হয়েছে। বোকো হারাম মনে করে এসব লোকজন সরকারি মিলিশিয়া বাহিনীর হয়ে গুপ্তচরবৃত্তি করে।’আর এ সন্দেহে তারা কৃষক, শ্রমিক, জেলেদের টার্গেট করে হামলা চালিয়েছে। গত মাসেও পৃথক দুটি ঘটনায় বোকো হারাম জমিতে সেচ দেওয়ার কাজে নিয়োজিত ২২ কৃষিশ্রমিককে হত্যা করেছে। -ডেস্ক রিপোর্ট