(দিনাজপুর২৪.কম) সম্প্রতি ভারতের মুম্বইয়ের এক কলগার্লকে লাঞ্ছনার শিকার হতে হল লখনউয়ে৷ একটি পাঁচতারা হোটেলে তার সঙ্গে দীর্ঘসময় কাটিয়ে তাকেই লুঠ করে পালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ কয়েকজন যুবকের বিরুদ্ধে৷ নির্যাতিতা তরুণী গোমতীনগর থানা, ওমেন পাওয়ার লাইন, মর্ডান পুলিশ কন্ট্রোল রুমের চক্কর কাটার পর মহিলা থানায় অভিযোগ জানাতে আসে৷ পুলিশি তদন্তে ওই কলগার্ল নির্দ্বিধায় ঘটনার কথা জানায়৷ ওই দেহব্যবসায়ী জিজ্ঞাসাবাদ চলাকালীন অসাধারণ ইংরেজীতে কথা বলে পুলিশকর্মীদেরও হতবাক করে দেন৷ সে তার গোটা জীবন কথা জানায়৷

তরুণী বলেন, ‘আমি রাস্তার মেয়ে নই৷ শরীর বিক্রি করা আমার ব্যবসা’৷ তরুণী জানায়, তাকে দুই কোটি টাকা জোগাড় করতে হবে৷ এরপর সে নিজের বিউটি পার্লার খুলবে৷ হাই প্রোফাইল এই কলগার্ল দিল্লি, মুম্বই, ভূপালয়ে বুকিংয়ে যেতেন৷ সে জানায়, দিল্লির এক দালাল গৌরবই তার সমস্ত খদ্দের জোগাড় করে দেয়৷ গৌরবই তাকে লখনউয়ের দালাল রাজার কাছে পাঠিয়েছিল৷ সে জানায়, সে প্রথমবার লখনউয়ে এসেছে৷ সেখানের দালালই তাকে প্রতারিত করেছে৷

পুলিশকর্মীদের প্রশ্নে ওই দেহব্যবসায়ী এমন উত্তর দেয় যা শুনে পুলিশও অবাক হয়ে যান৷ তাকে জিজ্ঞাসা করা হয়, সে মাসে কতদিন কাজ করে৷ তাকে তরুণী জানায়, মাত্র দিশ দিন৷ এই প্রশ্নের উত্তরে পুলিশ সন্তুষ্ঠ হয়নি৷ অন্য এক পুলিশ কর্মী তাকে জিজ্ঞাসা করেন সে কেন গোটা মাস কাজ করে না৷ তাতে তরুণী জানায়, এটা তার ব্যবসা তাই মাসে মাত্র দশ দিন কাজ করে আর বাকি দিন সে শরীর পরিচর্যা করে৷ সে জানায় শরীরচর্চার জন্য তার নির্দিষ্ট ট্রেনার রয়েছে৷ এছাড়াও সে ডায়টেশিয়ানের সাহায্যও নেয়৷ সুত্র-কলকাতা ২৪