(দিনাজপুর২৪.কম) ভোলার লালমোহনে ডাকাতি ও মানবপাচারসহ ৪ মামলার পলাতক আসামি হাসানকে আটক করেছে লালমোহন থানা পুলিশ। হাসানকে আটকের পর ২০১৮ সালের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এতে দেখা যায়, গ্রেপ্তার হওয়া হাসান স্থানীয় জসিম নামে এক যুবককে স্ত্রী-সন্তানের সামনে উলঙ্গ করে নির্যাতন করছেন।

সোমবার (২৮ অক্টোবর) সকাল থেকে এ ভিডিও সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে। এর আগে রোববার দিবাগত রাতে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

নির্যাতনের শিকার জসিমের স্ত্রী জয়নব বিবি বাদী হয়ে সোমবার লালমোহন থানায় এ মামলা দায়ের করেন। মামলায় হাসানকে আটক দেখিয়ে তার ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন অফিসার ইনচার্জ মীর খায়রুল কবীর।

এদিকে নির্যাতনের এ ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তোলপাড় সৃষ্টি হওয়ায় সোমবার বিকাল ৩টায় লালমোহন থানায় এক সংবাদ সম্মেলন ডাকেন ইউএনও হাবিবুল হাসান রুমি ও ওসি মীর খায়রুল কবীর।

সংবাদ সম্মেলনে তারা বলেন, ভিডিওটি ২০১৮ সালের ২৫ জুলাইয়ের। ওই সময় কেউ এ ঘটনা প্রকাশ করেনি। জসিমকে নির্যাতনের কোনো অভিযোগও থানায় দায়ের করেনি।

সোমবার ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়লে প্রশাসনের দৃষ্টিগোচর হয়। এর পরপরই ভিকটিম জসিমের স্ত্রীকে ডেকে এনে মামলা নেয়া হয়েছে। আটককৃত হাসানের বিরুদ্ধে চট্টগ্রামের পাহাড়তলী ও হালিশহর থানায় মানব পাচার, ডাকাতি ও চুরির অভিযোগে ৩টি মামলা রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও বলা হয়, ঘটনা প্রায় বছরখানেক আগের হলেও নির্যাতিত জসিমের স্ত্রী ও মেয়েরা ভয়ে কাউকে বলতে পারেনি। এমনকি ওই সময় ভোলাতে চিকিৎসাও করাতে পারেনি। পরে এক আত্মীয়ের সাহায্য নিয়ে জসিমকে ঢাকার একটি ক্লিনিকে ভর্তি করায় অসহায় স্ত্রী ও সন্তানরা।

৬-৭ মাস চিকিৎসার পর ভোলায় ফিরে আসলে ৩ বার ইয়াবা মামলায় ফাঁসানো হয় তাকে। দীর্ঘদিন পর সেই ঘটনার ভিডিও প্রকাশ হওয়ায় আবারও আতঙ্কে রয়েছে তারা। ইতিমধ্যে ভিটেমাটি ছাড়া করার হুমকিও দেয়া হয়েছে তাদের।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে আতঙ্ক নিয়ে নির্যাতিত বাবার শিশু সন্তান সোনিয়া বলে, তাদের নাম প্রকাশ করলে এবার ভিটেমাটিও ছাড়তে হবে। শুধু মাদক ব্যবসায় রাজি না হওয়ায় তার বাবার ওপর এমন লোমহর্ষক নির্যাতন চালানো হয় বলেও অভিযোগ সোনিয়ার।

উল্লেখ্য, রোববার রাতে নির্যাতনকারী কালমা ইউনিয়নের চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী ও ডাকাতি মামলার আসামি হাসানকে পুলিশ গ্রেফতার করে। এর পরপরই ভিডিওটি ছড়িয়ে দেয়া হয় ফেসবুকে।

ভিডিওতে দেখা গেছে, উপজেলার ডাওরী বাজারে একই ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা শাহার আলী বাড়ির মৃত আব্দুল মুন্নাফের ছেলে মোটরসাইকেল চালক জসিমকে শত শত মানুষ ও তার দুটি শিশু সন্তানের সামনে নির্যাতন করা হচ্ছে।

নির্যাতনকারী হাসান কালমা ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের মিস্ত্রিবাড়ির আবুল হোসেনের ছেলে। মোটরসাইকেল চালক জসিমকে তার দুটি শিশু সন্তানের সামনে বিএনপি ও সন্ত্রাসী আখ্যা দিয়ে হাত-পা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্মমভাবে নির্যাতন করে। জসিমকে নির্যাতনের ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়লে সর্বত্র নিন্দার ঝড় বইতে শুরু করে। -ডেস্ক