এম.এ সালাম (দিনাজপুর২৪.কম)  দিনাজপুরের হাকিমপুর উপজেলা হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে পাথর আমদানি বেড়েছে। অন্যান্য পন্য আমদানির চেয়ে পাথর আমদানি বেশী হচ্ছে এ বন্দর দিয়ে। প্রতিদিন ভারতীয় ৮০ থেকে ৯০ ট্রাকে আমদানি হচ্ছে পাথর। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের বেঁধে দেয়া রাজস্বের লক্ষ্য মাত্রা পুরুনে বড় যোগান আসে পাথর আমদানি থেকে। গত ৭ মাসে পাথর থেকে রাজস্ব এসেছে প্রায় ৭৬ কোটি টাকা। আর পাথর আমদানি বেড়ে ওঠায় বন্দরের পানামা পোর্টে দেখা দিয়েছে জায়গার সংকট। ফলে রাজস্বের লক্ষমাত্রা পূরণে হিমসিম খেতে হচ্ছে কাস্টমসকে।
পাকুর নামের পাথর আসে ভারতের ঝাড়খন্ড রাজ্য থেকে। আমদানিকৃত এই পাথর বেচাকেনা নিয়ে হিলি স্থলবন্দরে গড়ে উঠেছে বিশাল বাজার। প্রায় প্রতিদিনই কোটি কোটি টাকার পাথর বিক্রি হয়ে থাকে এই বন্দর থেকে। পদ্মাসেতু, মেট্রোরেল ও রুপপুর পারমানোবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র সহ দেশের বৃহত্তর অবকাঠামো উন্নয়নে পাথরের চাহিদা বেড়েছে প্রচুর। আর এই বাড়তি চাহিদা পূরণ করতে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি করা হচ্ছে ভারতীয় পাকুড় পাথর। হিলি পোর্টে আমদানি কারক ছাইফুল ইসলাম ও ফেরদৌস রহমান বলেন, বেশি বেশি পাথর আমদানি করছেন তারা।
এছাড়াও হিলি স্থলবন্দর এখন পাথর নির্ভরশীল হয়ে উঠেছে। আর রাজস্ব যোগান আসছে পাথর থেকে। হিলি স্থলবন্দর আমদানি-রফতানি কারক গ্রুপের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান হারুন উর রশিদ হারুন, সরকারের আরও রাজস্ব আয় বৃদ্ধির লক্ষে পানামা পোর্টের জায়গা বৃদ্ধির দাবি জানান। হিলি কাষ্টমস্-এর রাজস্ব কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বলেন, রুপপুর পারমানোবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সরবরাহকৃত পাথর, বিনা শুল্কে ছাড় দিয়ে যাচ্ছে স্থানীয় কাষ্টমস্। ৭ মাসে পাথর আমদানি হয়েছে ৯ লাখ ৬৬ হাজার ৭৬৮ মেট্রিক টন। যার বিপরীতে সরকার রাজস্ব পেয়েছে ৭৫ কোটি ৬৮ লাখ ৬৬ হাজার ৩৬৯ টাকা।