আব্দুস সালাম, হেড অব নিউজ (দিনাজপুর২৪.কম) আগামী ১৬ জানুয়ারি-২০২১ অনুষ্ঠিত পৌরসভা নির্বাচনে দিনাজপুরে সহিংসতার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। প্রার্থীরা অবাধে প্রচারনা চালাতে পারলেও খোদ তারাই এই আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন। বিশেষ করে মেয়র পদ নিয়ে নির্বাচনে সহিংসতার আশঙ্কা করছেন সুধীমহলেরা।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিএনপি নেতা বলেন, আমরা আগেই খবর পেয়েছি এবারের দিনাজপুর পৌরসভা নির্বাচনে ভোটে কারচুরি হবে এবং সহিংসতা হতে পারে এবং বিএনপির কিছু নেতাকর্মীদের জেল হতে পারে! অপরদিকে ১৬ জানুয়ারি পৌর নির্বাচনের আগেই ১১ জানুয়ারি দিনাজপুর শহর যুব লীগের সভাপতি ও ১২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী বর্তমান কাউন্সিলর মোঃ আশরাফুল আলম রমজান দুর্বৃত্তের হামলার শিকার হন।
সাধারণ ভোটাররা রয়েছেন ফুরফুরে মেজাজে। তারা বলেন, আমরা আনন্দের সাথে ভোট কেন্দ্রে ভোট প্রদান করতে যাবো। সূত্র মতে মেয়র পদের জন্য জনসাধারণের মুখে শোনা যাচ্ছে ও সুধীমহলেরা মনে করছেন এবারের পৌর নির্বাচনে নৌকা এবং ধানের শীষ মার্কায় হাড্ডা-হাড্ডি লড়াই হবে। তবে লাঙ্গল, হাতপাখা ও কাস্তে মার্কাও রয়েছে আলোচনায়।
দিনাজপুর সদর উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবারের পৌরসভা নির্বাচনে ৮৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্বিতা করছেন। এদের মধ্যে মেয়র পদে ৫জন, সাধারণ আসনের কাউন্সিলর পদে ৬৪ জন ও সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর পদে ১৮জন প্রার্থী রয়েছেন।
মেয়র পদে ৫জন প্রার্থী হলেন আওয়ামী লীগ মনোনিত রাশেদ পারভেজ (নৌকা), বিএনপি মনোনিত মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম (ধানের শীষ), জাতীয় পাটি মনোনিত আহম্মেদ শফি রুবেল (লাঙ্গল), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনিত মোঃ হাবিবুর রহমান রানা (হাতপাখা) ও কমিউনিষ্ট পার্টি মনোনিত প্রার্থী এ্যাভোকেট মোঃ মেহেরুল ইসলাম (কাস্তে)
গত ৩০ ডিসেম্বর মেয়র, সাধারণ আসনের কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত আসনের প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়। এবারে দিনাজপুর পৌরসভার ৪৯টি ভোট কেন্দ্রে মোট ভোটার ১ লাখ ৩০ হাজার ৮শ’ ৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৬৩ হাজার ২৬ জনও মহিলা ভোটার ৬৭ হাজার ৭৭৭ জন।
দিনাজপুর নির্বাচন কমিশন জানান, দিনাজপুর সদর পৌরসভা নির্বাচনে সহিসংতা বিষয়টি আমাদের জানা ছিল না। আজ জানলাম, আমরা সে রকম প্রস্তুতি নিব। তবে বেশ কয়েকটি ঝুঁকিপূর্ণ ভোট কেন্দ্রগুলোতে আমাদের বিশেষ নজর থাকবে বলেও তিনিরা জানান।