জিন্নাত হোসেন (দিনাজপুর২৪.কম)  দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর আহমদ হোসেন বলেছেন, গবেষণা জরিপ হতে জানা যায় একটি গাছ যদি ৫০ বছর বাঁচে তাহলে সেই গাছ হতে ৩১,২০৫ মার্কিন ডলার সমমান মূল্যের অক্সিজেন পাওয়া যায়, ৬২,০০০ মার্কিন ডলারের বায়ু দূষণ প্রতিরোধ হয়, ৩৭,৫০০ মার্কিন ডলারের পানি শোধন হয় এবং ৩১,২৫০ মার্কিন ডলারের মাটি ক্ষয় রোধ হয়, অথচ আমরা এদিকটা চিন্তা না করেই একের পর এক গাছ কেটেই চলেছি এবং সমপরিমাণ বৃক্ষরোপন করছিনা। যা বৃক্ষ কাটার আগেই পরিকল্পনায় বৃক্ষরোপন বিষয়টি থাকার কথা কিন্তু একবারও চিন্তা করছি না কি ভয়াবহ পরিস্থিতি আমরা আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য রেখে যাচ্ছি। অথচ আমাদের একটি ক্ষুদ্র উদ্যোগই পারে একটি সুন্দর, সুস্থ্য ও সবুজ পৃথিবী গড়ে তুলতে। আর এই উপলব্ধি হতেই নতুন প্রজন্মকে সচেতন করার উদ্দেশ্যে পল্লীশ্রী’র উদ্যোগে বিভিন্ন বিদ্যালয়ে বৃক্ষরোপন কর্মসূচী যথেষ্ট ভূমিকা রাখবে।
গাছ রোপনের উপকারিতা ও প্রয়োজনীয়তা বিদ্যালয়গামী সকল শিক্ষার্থীদের মাঝে ছড়িয়ে দেয়ার জন্য পল্লীশ্রী’র পক্ষ হতে দিনাজপুর জেলার ১১৪টি বিদ্যালয়ে জলপাই, আমলকি ও মেহগনি গাছের চারা রোপন করার পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়েছে যা ৩ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার দিনাজপুর জিলা স্কুল ও কলেজিয়েট গার্লস হাই স্কুল এন্ড কলেজে বৃক্ষ রোপন কর্মসূচীর উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথি দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান আহমেদ হোসেন এ কথা বলেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন  পল্লীশ্রী’র নির্বাহী পরিচালক শামিম আরা বেগম, কলেজিয়েট গার্লস হাই স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ হাবিবুল ইসলাম বাবুল, জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক আখতারা পারভীন এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের প্রধান ও সিনিয়র শিক্ষকবৃন্দ ও পল্লীশ্রী’র কর্মীবৃন্দ।  “এই পৃথিবীকে সকলের বাসযোগ্য করার উদ্যোগ নতুন প্রজন্মকেই নিতে হবে” এই আহ্বানকে সামনে রেখে পল্লীশ্রী’র এই ক্ষুদ্র উদ্যোগ। এই উদ্যোগের মাধ্যমে ১৭০০টি গাছের চারা জেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ে রোপন করা হবে।