(দিনাজপুর২৪.কম) পার্বতীপুর থেকে ঠাকুরগাঁও ও লালমনিরহাট রেলপথে দীর্ঘ ৭ মাস বন্ধ থাকার পর পুনরায় ডেমু ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। ফলে এই পথে চলাচলকারী যাত্রীসাধারনের দীর্ঘ দিনের সমস্যা অনেকটাই সমাধান হয়েছে। পার্বতীপুর রেলওয়ে স্টেশন সুত্রে জানা গেছে, নাশকতার আশংকায় চলতি সালের ৫ জানুয়ারী থেকে পার্বতীপুর-ঠাকুরগাঁও ও পার্বতীপুর-লালমনিরহাট রেলপথে আধুনিকমানের যাত্রীবাহী ডেমু ট্রেন বন্ধ রাখা হয়। পরবর্তীতে অবরোধ প্রত্যাহার করা হলেও চালক সংকটের কারনে এই ট্রেনের চলাচল বন্ধ থাকে। ফলে এই পথে চলাচলকারী যাত্রী সাধারণকে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়। সকল সমস্যা সমাধানের মাধ্যমে চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে আবারও বন্ধ থাকা ডেমু  ট্রেনটি নিয়মিত চলাচল শুরু করেছে।
২০১৩ সালের ২৭ আগষ্ট মঙ্গলবার সকালে ঠাকুরগাঁও রেলওয়ে স্টেশন থেকে ট্রেনটি আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হয়ে পার্বতীপুর রেলওয়ে জংশন থেকে লালমনিরহাট অভিমুখে ছেড়ে যায়। পার্বতীপুর থেকে ঠাকুরগাঁও ৯৪ কিলোমিটার  রেলপথের ৫টি রেলস্টেশন চিরিরবন্দর, দিনাজপুর, সেতাবগঞ্জ, পীরগঞ্জ ও  ঠাকুরগাঁও এ ডেমু ট্রেনটি যাত্রা বিরতি করে।
এছাড়া পার্বতীপুর-লালমনিরহাট রেলপথের ৫টি রেল স্টেশন খোলাহাটি, বদরগঞ্জ, রংপুর, কাউনিয়া ও লালমনিরহাটে এ ট্রেনটি যাত্রা বিরতি করে। ঘন্টায় ৭০ কিলোমিটার গতি সম্পন্ন ৩’শ যাত্রীর ধারণক্ষমতার ৩টি বগীর  প্রতিটি ডেমু ট্রেনে ১৪৯ জন যাত্রীর বসার ও ১৫১ যাত্রীর দাঁড়িয়ে গন্তব্যে যাতায়াত ব্যবস্থা রয়েছে।
পার্বতীপুর থেকে লালমনিরহাট পর্যন্ত টিকেটের মূল্য ৩৫ টাকা এবং দিনাজপুর পর্যন্ত টিকেটের মূল্য ১৫ টাকা নির্ধারন করা হয়েছে। অন্যান্য রেলস্টেশনে টিকেটের মূল্য কমিউটার ট্রেনের টিকেটের হারে নির্ধারণ করা হয়েছে। জনপ্রিয় এই ট্রেনটিতে নির্ধারিত আসন ও দাঁড়িয়ে থাকা যাত্রীদের চেয়ে অনেক বেশি যাত্রী যাতায়াত করছে।
এ ব্যাপারে পার্বতীপুর রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার আনোয়ার হোসেন সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, নাশকতার কারনে ও পরবর্তীতে চালক সংকটের জন্য ট্রেনটি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে বন্ধ রাখা হলেও কর্তৃপক্ষের নির্দেশে চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে ট্রেনটি পূর্বের ন্যায় পুনরায় নিয়মিতভাবে চলাচল শুরু করেছে।