দেলোয়ার হোসেন বাদশা (দিনাজপুর২৪.কম) মেয়ের বৃত্তির একাউন্ট চিরিরবন্দর ট্রেজারী অফিস হতে অন্য ট্রেজারী অফিসে স্থানান্তর করাকে কেন্দ্র করে  দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার নির্বাচিত শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক নন্দন কুমার দাস রাগান্বিত হয়ে চাপড়ে ট্রেজারী অফিসের টেবিলের গ্লাস ভেঙ্গে ফেলায় তুলকালাম শুরু হয়েছে। এ নিয়ে শিক্ষক সমিতির নেতাদের দফায় দফায়  বৈঠকও চলছে।  জানা গেছে, গতকাল রবিবার বেলা ১১টায় আলোকডিহি জেবি উচ্চ বিদ্যালয়ের শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক ও ২০১৬ সালের উপজেলার শ্রেষ্ট প্রধান শিক্ষক  মেয়ের বৃত্তির একাউন্ট চিরিরবন্দর ট্রেজারী অফিস হতে সৈয়দপুর ট্রেজারী অফিসে স্থানান্তর করা নিয়ে চিরিরবন্দর ট্রেজারী অফিসে গেলে অফিস সহকারী জুয়েল আহম্মেদ ব্যস্ততার কথা বললে ওই শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক নিজেকে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক দাবী করে  ক্ষিপ্ত হয়ে টেবিলে চাপড় মারলে টেবিলের গ্লাস ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যায় পরে ট্রেজারী অফিসারের কক্ষে গিয়ে  অফিসারের মুখে কাগজপত্র ছুড়ে মারে।  এসময় পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারী এসে বিষয়টি নিয়ন্ত্রনে আনে। এ ব্যাপারে ট্রেজারী অফিসার জাহেদ আলী জানান, সৃষ্ট ঘটনার জন্য ওই প্রধান শিক্ষক ভূল স্বীকার করে  কক্ষ থেকে বেরিয়ে গিয়েছে। এ ঘটনায় বিভিন্ন মহলে বেশ সমালোচনার ঝড় শুরু হয়েছে।