(দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুরে নারী দিয়ে মোবাইল ফোনে ডেকে এনে আটক রেখে মুক্তিপণ আদায়কারী চক্রের এক মহিলা সদস্যসহ ২ জনকে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ। আটককৃতরা হলো শহরের দক্ষিণ লালবাগ এলাকার আফজাল হোসেনর স্ত্রী নাসরিন আকতার ইসা (৩৫) ও বিরল উপজেলার তেঘরা মহেশপুর ভগিরতপাড়া গ্রামের মফিজ উদ্দীনের পুত্র রবিউল আউয়াল (৩৫) । ডিবি পুলিশের উপ-পরিদর্শক মোঃ বজলুর রশিদ জানান, পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার নগর সাকোয়া গ্রামের মৃত মকলেসুর রহমানের পুত্র সায়েদ পারভেজ কামাল গত ১৮ আগষ্ট দিনাজপুরে চিকিৎসার জন্য এসে নিউ হোটেল আবাসিকে অবস্থান করেন। ১৯ আগষ্ট বুধবার সকালে চিকিৎসার জন্য উপশহর ডায়াবেটিক হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য যান। এ সময় সায়েদ পারভেজ কামালের পূর্ব পরিচিত জনৈক পারুল আকতার বন্যা (৩৫) সকাল ১১ টার দিকে মোবাইল ফোনে কথা বলে সায়েদ পারভেজ কামালের অবস্থান জেনে নাসরিন আকতার ইসাসহ (২৪) দেখা করে।   তারা কৌশলে সায়েদ পারভেজ কামালকে উত্তর ফরিদপুর শিক্ষা বোর্ড রোড এলাকায় নাসির উদ্দিনের স্ত্রী রাশিদা বেগমের বাসায় নিয়ে যায়। সেখানে পৌছানোর পর কাঞ্চন কলোনী এলাকার মো. মাসুদ, মো. লিটু ও চাউলিয়াপট্টি এলাকার রানা এসে সায়েদ পারভেজ কামালকে অবরুদ্ধ করে রেখে তার পকেটে থাকা সাড়ে ১৭ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। এর পর ভিকটিমের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে তার আত্মীয় স্বজনের কাছে বিকাশ নাম্বার দিয়ে ২ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে। ফোন পেয়ে তার স্বজনেরা বাধ্য হয়ে ০১৭৯২৭০৭৩৯১ বিকাশ নাম্বারে ৫ হাজার টাকা প্রদান করলে তারা  সায়েদ পারভেজ কামালকে দুপুরে ছেড়ে দেয়।
মুক্তি পাওয়ার পর সায়েদ পারভেজ কামাল বিষয়টি ডিবি পুলিশকে অবহিত করলে ডিবি পুলিশ বৃহস্পতিবার (২০ আগষ্ট) দুপুরে দুই জনকে আটক করে।
ডিবি পুলিশের উপ-পরিদর্শক মো. বজলুর রশিদ জানান, দিনাজপুরে নারী দিয়ে মোবাইল ফোনে ডেকে এনে আটক রেখে মুক্তিপণ আদায়কারী চক্র রয়েছে। এই ঘটনাটি জানার পর মোবাইল নাম্বারের মাধ্যমে চিহ্নিত করে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার বিকেলে আটককৃতদের কোর্টে চালান দেয়া হয়েছে। বিচারক তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন।