স্টাফ রিপোর্টার (দিনাজপুর টোয়েন্টিফোর ডটকম) দিনাজপুরে বান্ধবীকে নিয়ে আমোদ-ফুর্তি করতে বন্ধুর হাতে বন্ধু খুন হয়েছে। এই ঘটনায় পুলিশ নিহতের তিন বন্ধুকে আটক ও ওই বান্ধবীকে উদ্ধার করেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে একটি লাশ উদ্ধারের পর দু’ঘন্টার ব্যবধানে পুলিশ ফিল্মীয় এই ঘটনা আবিস্কার করে।

হত্যার শিকার যুবকের নাম আরিফুল ইসলাম (১৮)। তিনি দিনাজপুর সদর উপজেলার ৬নং আউলিয়াপুর ইউনিয়নের আউ‌লিয়াপুর গ্রা‌মের মন্ডলপাড়া গ্রামের ওহাব উদ্দিনের ছেলে।

কোতয়ালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) বজলুর রশিদ জানিয়েছে, সদর উপজেলার নয়নপুর এলাকায় ধান ক্ষেতে এক যুবকের লাশ পড়ে থাকার খবর পায় তারা।সকাল ৮টায় অজ্ঞাত পরিচয় হিসেবে আরিফুল ইসলামের লাশ উদ্ধার করা হয়।

এর আগে এলাকাবাসীর তথ্যের ভিত্তিতে    আরিফুলের প্রেমিকা রেশমা আক্তার সিফাকে বাঙ্গীবেচার ঘাটে হিজড়া (মানব পল্লী) থেকে উদ্ধার করা হয়। পরে তারা জানতে পারেন ওই প্রেমিকার বাড়ি ঘোড়াঘাট উপজেলার কালিতলা এলাকায়।বুধবার রাতে জেলা শহরের রামনগরের মানিকপীর নামক এলাকায় একটি বাড়িতে ফুর্তির আয়োজন করছিল আরিফুল ও তার বন্ধুরা। সেখানে পাঁচ বন্ধুর সঙ্গে ফেনসিডিল এবং যৌন উত্তেজক সিরাপ পান করে অচেতন হয়ে পড়ে আরিফ। চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেওয়ার নাম করে মোটরসাইকেলসহ লাপাত্তা হয়ে যায় তার দুই বন্ধু।

অন্যদিকে তার প্রেমিকা রেশমা আক্তার সিফাকে নিজের হেফাজতে নিতে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে অন্য তিন বন্ধু। ওই পরিস্থিতিতে মধ্যরাতে রেশমা আক্তার সিফাকে হিজড়া পল্লীতে একজন হিজড়ার আশ্রয়ে তুলে দিতে বাধ্য হন তারা।

খবর পেয়ে  গতকাল বৃহস্পতিবার ভোরে রেশমাকে উদ্ধার করে কোতয়ালী পুলিশ। সকালে নয়নপুর এলাকাল ধান ক্ষেতে অজ্ঞাত যুবকের মৃতদেহ পড়ে থাকার খবর পান পুলিশ। পরে রেশমার কাছে আরিফুলের শারীরিক এবং পোশাকের বিবরণের তথ্য মিলিয়ে অজ্ঞাত লাশের পরিচয় নিশ্চিত হন তারা।

হত্যার নেপথ্যের পুরো কারণ উদঘাটনের পাশাপাশি লুৎফর রহমান এবং বিপ্লব ডন নামে দুই বন্ধুকে আটক করে পুলিশ। এছাড়াও জিজ্ঞাবাদের জন্য শাওন নামে আরেক বন্ধুকে আটক করা হয়েছে।

পরে ঘটনাস্থল মানিকপীরের ওই বাড়ি তল্লাশি করে আরিফের পরনের প্যান্ট এবং জুতাসহ আলামত উদ্ধার করা করা হয়েছে।
দুপুরে দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজের মর্গে লাশের ময়না তদন্ত করা হয়েছে। এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে কোতোয়ালি থানায়। আটককৃতদের জেল-হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।