মোঃ মোকাররম হোসেন (দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার হাবিবপুর গ্রামের মোঃ শহিদুল ইসলামের পুত্র মোঃ খাদেমুলের স্ত্রী মোছাঃ মনিষা বেগম ওরফে মনির মৃত্যু নিয়ে ধু¤্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। বিলম্ব খবরে প্রকাশ, মৃত মনিষার পিতা মাহাবুর রহমান দাবী করেছেন তার জামাই খাদেমুল যৌতুকের কারণে তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। বিষয়টি ভিন্নখাতে প্রবাহের জন্য মৃত মনিষার মুখে কীটনাশক খেয়ে মৃত্যু বরণ করেছে বলে প্রচার করা হচ্ছে তা সম্পূর্ণ সাজানো নাটক। মৃত মনিষার বাবা মোঃ মাহাবুর রহমান আরও দাবী করেন, এর আগেও আমার মেয়ে মনিষাকে জামাই খাদেমুল এবং তার পরিবার যৌতুকের কারণে পাশবিক নির্যাতন করেছিলো। এ সংক্রান্ত বিষয়ে আমি দিনাজপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে ২২১/২০১৯ নারী ও শিশু মামলা করেছিলাম। মৃতের পিতা আরও অভিযোগ করে বলেন, আমার মেয়ের এই হত্যাকান্ডের বিচারের জন্য পার্বতীপুর মডেল থানায় এজাহার করতে গেলে থানার ওসি মামলা নেয়নি। সর্বশেষ তিনি জানান, তার মেয়ে মনিষাকে নির্যাতন করে মেরে ফেলা হয়েছে কিন্তু আমার চতুর জামাই ঘটনাটি সাধারণ মৃত্যু দেখিয়ে দেওয়ার জন্য এম.আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ফরেনসিক বিভাগে যোগাযোগ করে তার পক্ষে রিপোর্ট করার জন্য মোটা অঙ্কের অর্থ লেনদেন হয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।
মাহবুবুর রহমান জানান, তিনি কোর্টে মামলা করবেন তার মেয়ের হত্যাকান্ডের বিচারের জন্য।