(দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুরে এম.আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কর্মরত নার্স সুমি আকতারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এনে দায়েরকৃত মামলায় তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে বিচার চেয়ে নালিশ দিয়েছেন এক হতভাগ্য ভাই গোলাম মর্তুজা।
নালিশকৃত পত্রে জানা গেছে, দিনাজপুর সরকারি নার্সিং ইনস্টিটিউটে নার্সিং এ ভর্তির ব্যাপারে নার্স সুমি আকতার নার্সে ভর্তিচ্ছুক ছাত্রী আবেদার ভাই গোলাম মতুর্জার কাছ থেকে নগত ৭ লাখ টাকা গ্রহণ করে। প্রকাশ থাকে যে উক্ত গোলাম মতুর্জা সেখেরচর, বোয়ালিয়া থানা, রাজশাহী জেলার মৃত গোলাম মাহবুবের পুত্র। অপরদিকে একই ঘটনায় নার্স সুমি আকতার নার্সিং এ ভর্তিচ্ছুক ছাত্রী বাঘগোনা, খুলসী থানার, চট্টগ্রাম জেলার মোঃ লেলিনের কন্যা জোসনা বেগমের কাছ থেকেও ১০ লাখ গ্রহণ করে এবং টাকা নেয়ার পর বিশ্বাস অর্জনের জন্য সোনালী ব্যাংক লিঃ, শেখপুরা সদর শাখা, দিনাজপুর, সঞ্চয়ী হিসাব নং ৩৪০২১৩৯৮ তার ব্যক্তিগত চেক প্রদান করে। কিন্তু ২ জন ছাত্রীকে দিনাজপুর সরকারি নার্সিং ইনস্টিটিউটে ভর্তি করাতে পারেনি নার্স সুমি আকতার। সুমির কাছে টাকা ফেরত চাইলে সে দিতে অস্বীকৃতি জানায়। ফলে সুমির কাছ থেকে উক্ত টাকা ফেরত না পাওয়ায় মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালত চট্টগ্রামে জোসনা বেগমের পিতা মোঃ লেলিন ১টি এবং মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালত রাজশাহীতে আবেদার ভাই গোলাম মর্তুজা ১টি চেক ডিসঅনার মামলা দায়ের করেন। বর্তমানে মামলা ২টি চলমান রয়েছে।
এদিকে এম.আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কর্তব্যরত নার্স সুমি আকতারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি কারও কাছে টাকা নেই নাই। এসব ঘটনা সত্য নয়। বিস্তারিত আমি পরে জানাবো।
সবশেষ খবরে জানা গেছে, সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে সুমির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নালিশ করায় বাদী ২জনকে ফোনে নার্স সুমি আকতার নারী ও শিশু নির্যাতন এবং ধর্ষণ মামলার হুমকি-ধামকি দিচ্ছে এবং মামলা তুলে নেয়ার জন্য চাপ দিচ্ছে জানা গেছে। -ডেস্ক