মাহবুবুল হক খান (দিনাজপুর২৪.কম)  দিনাজপুরে দ্বিতীয় মাষ্টার কাপ ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট-২০১৭ এর উদ্বোধন করা হয়েছে।  বুধবার (২০ ডিসেম্বর) সকালে গোর-এ-শহীদ বড় ময়দানে দিনাজপুর সাবেক ক্রিকেট খেলোয়াড় ও সংগঠক আয়োজিত দ্বিতীয় মাষ্টার্স কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি। এ সময় তিনি বলেন, নতুন প্রজন্মকে আগামীদিনের কারিগর আখ্যায়িত করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন, ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্রমুক্ত, সুখী, সমৃদ্ধি, আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। শিক্ষিত জাতি ও খেলাধুলায় পারদর্শিরা এখন জাতিকে উন্নয়নের অগ্রগতির পথ দেখাবে।
তিনি বলেন, খেলাধুলা এখন বিশ্বের পরিচিতি লাভের একটি সহায়ক শক্তি। প্রতিভা বিকাশে খেলাধুলার কোন বিকল্প নেই। এছাড়াও মাদকের ভয়াল থাবা প্রতিনিয়ত যুবকদের হাতছানি দিচ্ছে। এই থাবা থেকে রক্ষা করতে যুবকদের মাঠমুখী করতে হবে।
ইকবালুর রহিম এমপি বলেন, খেলাধুলায় উৎসাহিত করতে সাড়ে ৫ কোটি টাকায় দিনাজপুর স্টেডিয়াম, দেড় কোটি টাকায় ক্রীড়া পল্লী, ২ কোটি টাকায় হকি মাঠ, ১১ কোটি ৭৫ লক্ষ টাকায় জিমন্যাসিয়াম ও ৩৫ লক্ষ টাকায় খেলাধুলায় সরজ্ঞাম ক্রয়সহ প্রচুর অর্থ অনুদান দিয়ে দিনাজপুরের শিশু, যুবকদের মাঠমুখি করা হয়েছে। এছাড়া দিনাজপুর স্টেডিয়ামের পাশে ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি আন্তর্জাতিকমানের ইনডোর স্টেডিয়াম বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার পথে। শিঘ্রই কাজ শুরু হবে বলে তিনি জানান। সাবেক খেলোয়াড়দের এ ধরনের টুর্নামেন্টকে সাধুবাদ জানিয়ে আগামীতে তা চলমান রাখতে সর্বাত্বক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন তিনি।
অনুষ্ঠানে দ্বিতীয় মাষ্টার্স কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের আহবায়ক প্রকৌশলী মতিউর রহমান মতি’র সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবু তাহের মো. মাসুদ রানা, দিনাজপুর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সিনিয়র সহ সভাপতি মো. আনোয়ারুল ইসলাম, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন চৌধুরী পাপ্পু, ডা. ইলিয়াস আলী খান এডিন। ধারাভাষ্যকার মো. রফিক’র সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন টুর্নামেন্ট কমিটির সদস্য সচিব ও জেলা পরিষদের সদস্য ফয়সল হাবিব সুমন।
আলোচনা শেষে ফেস্টুন ও বেলুন উড়িয়ে টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি। পরে গোর-শহীদ বড় ময়দান মাঠ হতে প্রধান অতিথির নেতৃতে এক বর্ণাঢ্য আনন্দ র‌্যালী বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় বড় মাঠে গিয়ে শেষ হয়।