মোঃ ওয়াহেদুর রহমান (দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুরে তিয়ানসি কোম্পানী লিঃ এর প্রতারণার ফাঁদে পড়ে শত শত সহজ, সরল লোকজন প্রতারিত হচ্ছে। অভিযোগে জানা যায়, দিনাজপুর জেলার পাব্র্তীপুর উপজেলার উত্তরা গ্রামের মৃত ছায়েব উদ্দীনের পুত্র আশেক উল্লাহ পার্বতীপুর থানায় মামলার বিবরণে বলেন, পার্বতীপুর পৌরসভার জসিম উদ্দীন সড়কে জনতা ব্যাংকের নীচ তলায় মেসার্স জান্নাতুন নাইম হেলথ কেয়ার এর স্বত্বাধিকারী ও মালিক হিসেবে গাইবন্ধা জেলার পিয়ারাপুর এলাকার সাহাবউদ্দীনের পুত্র মোঃ হায়দার রহমান এর সহিত ব্যবসা বাণিজ্যের সুসম্পর্ক সৃষ্টি হয়। সেই সুবাদে হায়দার রহমান বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে গত ২৯ নভেম্বর’১৬ তারিখে ২০ লক্ষ টাকা কর্জ্জ লোন নিয়ে একটি হ্যান্ডনোট সহি সম্পাদন করে স্বীকার করেন যে, গৃহীত টাকা ১ মাস অর্থাৎ ১ জানুয়ারি’১৭ তারিখের মধ্যে ফেরৎ প্রদান করবে বলে জানায় কিন্তু উক্ত সময়ের মধ্যে টাকা ফেরৎ দেয়নি এবং যোগাযোগ করেনি। আশেক উল্লাহ উক্ত টাকা আদায়ের জন্য হায়দার আলীর সাথে দেখা করে টাকা পরিশোধের জন্য অনুরোধ করলে আজ দিব কাল দিব বলে সময় কাল ক্ষেপন করতে থাকে। গত ১ জুলাই’১৭ তারিখে দিনাজপুর শহরে বালুবাড়ী মহিলা বহুমূখী সমিতিতে তিয়ানশি কোম্পানী লিঃ মিটিং সেমিনার করতে আসলে হায়দার আলীকে উক্ত পাওনা টাকা চাইলে সে ফেরৎ দিতে অস্বীকার করে এবং ভবিষ্যতে টাকা চাইলে মারডাং, খুন জখম ও লাশ গুম করবে মর্মে নানা ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করে। হায়দার আলী বিশ্বাস ভঙ্গ করে প্রতারণামূলকভাবে ২০ লক্ষ টাকা কর্জ্জ করে আত্মসাৎ করার অপচেষ্টায় লিপ্ত থাকে। ফলে আশেক উল্লাহ উক্ত টাকা উদ্ধারের আশায় অফিসার ইনচার্জ, পার্বতীপুর মডেল থানায় হায়দার আলীকে আসামী করে একটি এজাহার দাখিল করে, যার মামলা নং-৪, তাং-০৫/১০/২০১৭ ইং। এ ব্যাপারে আমাদের প্রতিনিধিকে আশেক উল্লাহ জানায়, তিয়ানসি কোম্পানি লিঃ এর কর্মকর্তা হায়দার আলী তাকে বলে, এক বছর তিয়ানসি কোম্পনী লিঃ এর সাথে থাকলে বিলাসবহুল গাড়ী-বাড়ি, ছেলে-মেয়েদেরকে চীন দেশে পড়ালেখার সুযোগ পিএইচডি ডিগ্রী এবং বিশ্বখ্যাত অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি করে দিবে। আশেক উল্লাহ আরও জানায়, আমার মত শত শত সহজ সরল লোকজন তিয়ানসি কোম্পানী লিঃ এর প্রতারণার শিকার হয়ে তাদের পাওনা টাকা উদ্ধারের জন্য সুবিচারের আশায় সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরছে। তিয়ানসি কোম্পানী লিঃ এর বিভিন্ন প্রকার চমকপ্রদ প্রলোভনে পড়ে প্রত্যন্ত অঞ্চলের সহজ সরল মানুষ সর্বশান্ত হচ্ছে। এদিকে তিয়ানসী কোম্পানী লিঃ এক কৌটা গুড়া পাউডার দিয়ে ক্যান্সার, ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন জটিল রোগ ভালো করার নাম করে লক্ষ লক্ষ টাকা সাধারণ মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে। কিন্তু অদ্যাবধি তাদের ঔষধে কোন সুফল হয়নি বলে অনেক ভূক্তভোগী আমাদের প্রতিনিধিকে অভিযোগ করে বলেন। ঔষধের সর্বনিম্ন ৩৫০ টাকা থেকে শুরু করে দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত পণ্য বিক্রয় করে কোম্পানীর গ্রাহক বানিয়ে এমএলএম পদ্ধতিতে সদস্য সংগ্রহ করে চলেছে তিয়ানসি কোম্পানী লিঃ। অথচ এ ধরনের কোম্পানীর উপর সরকারী নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্বেও প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে প্রতারণা কার্যক্রম বীরদর্পে চালিয়ে যাচ্ছে। দিনাজপুর শহরের হাউজিং মোড়সহ জেলার বিভিন্ন উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে সাইনবোর্ড বিহীন তিয়ানসি কোম্পানীর লিঃ অফিস বীরদর্পে পরিচালিত হচ্ছে। দিনাজপুর অঞ্চলে তিয়ানসি নামে হায় হায় কোম্পানির রোষানলে পড়ে প্রতিনিয়ত শত শত নিরীহ লোকজন সর্বশান্ত হলেও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সেরকম মাথা ব্যাথা না থাকায় তারা তাদের কার্যক্রম বহাল তবিয়তে চালাচ্ছে। এ ব্যাপারে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভূক্তভোগীরা।