মাহবুবুল হক খান (দিনাজপুর টোয়েন্টিফোর ডটকম)
দিনাজপুরে ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ঘর-বাড়ী ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতিসাধিত হয়েছে। ঝড়ে উঠতি বোরো ধানসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ভেঙে গেছে গাছ-পালা ও কাঁচা ঘর-বাড়ি। মঙ্গলবার (২৬ মে) দিবাগত রাতে সদর উপজেলাসহ জেলার ১৩টি উপজেলার বিভিন্ন স্থানের উপর দিয়ে বয়ে ঝড়ে এই ক্ষতিসাধিত হয়।
মঙ্গলবার রাতে বয়ে যাওয়া ঝড়ে দিনাজপুর শহরের নিমতলায় একটি বড় গাছ ভেঙে রাস্তা ও ঘরের উপর পড়ে যায়। খবর পেয়ে পেয়ে বুধবার সকালে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে গাছ কেটে রাস্তা থেকে গাছটি সড়িয়ে দিয়েছে। সদর উপজেলার আউলিয়াপুর ইউনিয়নের মহব্বতপুর গ্রামসহ আরো বেশ কয়েক গ্রামে বড় বড় গাছ ভেঙে উপড়ে পড়ে কাঁচা ঘরবাড়ীর ক্ষতি হয়েছে। অনেক স্থানে ডালপালা ভেঙে পড়ায় আম, লিচুর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। গাছের ডাল ভেঙ্গে আম ও লিচু মাটিতে পড়ে গেছে। সদর উপজেলার মুরারীপুর, মহব্বতপুর, কসবাসহ বিভিন্ন গ্রামে কাঁচা ঘরবাড়ীর ভেঙ্গে পড়েছে। উঠতি বোরো ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তবে এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত কোথাও প্রাণহানির কোন খবর পাওয়া যায়নি।
এছাড়া ঝড়ে জেলার বিরল, চিরিরবন্দর, কাহারোল, বোচাগঞ্জ ও খানসামাসহ অন্যান্য উপজেলার বিভিন্ন স্থানে শতশত কাঁচা ঘরবাড়ি ভেঙে গেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। উপড়ে গেছে শতশত গাছ, ভেঙ্গে গেছে গাছের ডালপালা। ধান, ভুট্রাসহ উঠতি ফসল বোরো ধান, আম ও লিচুর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। অনেক স্থানে বৈদ্যুতিক খুঁটি উপড়ে গেছে। বিদ্যুতের খুটি ভেঙে যাওয়ায় জেলা শহর ও বিভিন্ন উপজেলা কয়েক ঘন্টা বিদ্যুতবিহীন হয়ে পড়ে। তবে সকালের দিকে বিদ্যুত ব্যবস্থা পুনরায় সচল হয়।
দিনাজপুর সদর উপজেলার আউলিয়াপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আব্দুর রাজ্জাক জানান, ঝড়ে ওই ইউনিয়নের ৫ শতাধিক ঘর-বাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। ঝড়ে টিনের চালা উড়ে গেছে। আম ও লিচুর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বড় বড় গাছ ভেঙে গেছে। ঝড়ে ৮/১০টি লিচু গাছ ভেঙে পড়ে লিচুর ক্ষতি হয়েছে। তাঁর নিজ ঘরের টিন উড়ে গেছে। বুধবার দুপুর ১২টার সময় সেই টিন অন্য বাড়ীর সামনে থেকে কুড়িয়ে এসেছেন বলে জানান তিনি।