(দিনাজপুর২৪,কম) দিনাজপুর পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমিন বলেছেন, আবহমানকাল থেকেই মাছ আমাদের ইতিহাস, সংস্কৃতি ও ঐতিয্যের সাথে জড়িয়ে আছে। আমাদের রয়েছে বিশাল অভ্যন্তরীণ ও সামুদ্রিক জলরাশি যা প্রাচীনকাল থেকেই এদেশের মানুষের মাছের যোগান দিয়ে আসছে। তথাপি আমাদের কৃষিভিত্তিক অর্থনীতিতে মৎস্য খাতের অবদান কৃষির মত সর্বজনস্বীকৃত নয়। ২৮ জুলাই মঙ্গলবার শিশু একাডেমী মিলনায়তনে দিনাজপুর মৎস্য অধিদপ্তর আয়োজিত জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-২০১৫ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমিন একথা বলেন। তিনি আরো বলেন, আমাদের বিশাল জনগোষ্ঠীর আমিষের যোগান নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রযুক্তি নির্ভর আধুনিক বিশ্বের সাথে তাল মিলে বর্তমানে মৎস্য সেক্টর সরকারী ও বেসরকারী পর্যায়ে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছে। একথা আজ আর কারো অজানা নয়,যে, কৃষি প্রধান বাংলাদেশে বিশাল অভ্যন্তরীণ ও সামুদ্রিক জলসম্পদে রয়েছে মৎস্য উৎপাদনের অপার সম্ভাবনা। বিশাল এ জলজসম্পদের কার্যকর ব্যবহার নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে জাতীয় অর্থনীতির উন্নয়ন তথা দেশকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করা সম্ভব। দিনাজপুর মৎস্য অধিদপ্তরের জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ হাসান ফেরদৌস সরকার এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ফরিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ আবু রায়হান মিঞা, দিনাজপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ গোলাম মোস্তফা ও দিনাজপুর প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা শংকর কুমার বসাক। স্বাগত বক্তব্য রাখেন দিনাজপুর সদর উপজেলার সিনিয়র মৎস কর্মকর্তা মোঃ মামুনুর রশিদ। অনুষ্ঠানে মৎসজীবীদের পে বক্তব্য রাখেন মৎসজীবী কৃষ্ণ চন্দ্র সরকার এবং মৎস চাষীদের পে বক্তব্য রাখেন মৎস চাষী মোঃ জয়নাল আবেদিন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা মৎস জরিপ কর্মকর্তা মোঃ ফয়জার রহমান ও মোঃ হারুন।

এরপর প্রধান অতিথি পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমিন, অনুষ্ঠানের সভাপতি ও জাতীয় মৎস সপ্তাহ উৎযাপন কমিটির সদস্য সচিব জেলা মৎস কর্মকর্তা মোঃ হাসান ফেরদৌস সরকারসহ বিশেষ অতিথিবৃন্দ দিনাজপুরের পুলিশ লাইনস পুকুর, রামসাগর দীঘি ও বিজিবি পুকুরে পোনা মাছ অবমুক্ত করেন। জাতীয় মৎস সপ্তাহ উপল্েয সকাল ১০টায় দিনাজপুর মৎস অফিস প্রাঙ্গন থেকে এক বর্ণাঢ্য সভাযাত্রা বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদনি করে।