এম.এ.কালাম (দিনাজপুর২৪.কম) জমি জবর দখলে ব্যর্থ হয়ে দুর্বৃত্তরা হামলা চালিয়ে জমির মালিকের উপর চড়াও হয়ে তাকে এবং তার ভাইদের বেদম প্রহার করেছে। তার ভাবীর শালীনতাহানি করেছে, ঘরের ভেতর অনুপ্রবেশ করে সেখান হতে অর্ধ  লক্ষাধিক টাকা লুট করে নিয়ে গেছে। দৃর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা  হয়েছে। তবে  কেউ গ্রেফতার হয়েছে বলে জানা যায়নি।
তথ্যনির্ভল সূত্রে জানা যায়, দিনাজপুর জেলাধীন খানসামা উপজেলার ভেড়ভেড়ি (কছি সরকার পাড়া) নিবাসী কসির উদ্দীনের পুত্র সাজেদুল ইসলাম ওরফে সাজু (২১) তার দলিলকৃত এবং নিজ দখলীয় জমিতে দীর্ঘদিন ধরে চাষাবাদ করে আসছেন। গত ৬ আগস্ট বেলা সাড়ে এগারটার দিকে  উক্ত জমি জবর দখলের উদ্দেশ্যে একই এলাকার মৃত হাকিম ইদ্দীনের পুত্র মোঃ আবুল হোসেন ওরফে মাথামোরা, এবং আবুল হোসেনের পুত্র সাদেক হোসেন (৩৫), মোঃ সোবহান আলী (৩৮), মোঃ আজিজুল হক এবং ছয়ফুল হোসেন, মৃত খেজামদ্দীনের পুত্র মোঃ সোহরাব আলী (৩৫), মৃত নেজাম উদ্দীনে  পুত্র সোঃ ইব্রাহিম (৩০),  আবুল হোসেনের স্ত্রী  আবিয়া বেগম (৫২), মোঃ সোবহান আলীর স্ত্রী  মোসাম্মৎ মনোয়ারা বেগম (৩২),  মোঃ সাদেক হোসেনের স্ত্রী মোসাম্মৎ সামসুন্নাহার  (৩৫), মোঃ হাকিম উদ্দীনের পুত্র মোঃ সাবুল হোসেন (৪৮), সাবুল হোসেনের পুত্র ওয়ারেস আলী (৩০) এবং মোস্তাকিম হোসেন সামুরাই, রড, ছোরা, লাঠিসোটা, দা ইত্যাদি মারাত্মক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে উক্ত জমিতে অনুপ্রবেশ করে। সাজেদুল ইসলাম এতে বাধা দিলে তর্কবিতর্ক শুরু হয়। এক পর্যায়ে বিবাদীরা ক্ষিপ্ত হয়ে সাজেদুলের শরীরের বিভিন্ন  অংশে  লাঠি দিয়ে আঘাত করে তাকে ক্ষত বিক্ষত করে। সাজেদুলের চিৎকারে তার ভাই মোঃ আরাফাত হোসেন, চাচাতো ভাই মোঃ আবু তাহের ও শাহানুর রহমান, চাচা মোঃ আনসারুল হক, মা বিলকিস বানু এবং ভাবী রাবেয়া বেগম প্রমুখ এগিয়ে আসেন।  তাদের আক্রমনে তার ভাই মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়। তার চাচা এবং চাচাতো ভাইও বিবাদীদের অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত হয়। বিবাদীরা সাজেদুলের মায়ের কান হতে আট আনা ওজনের সোনার রিং ছিনিয়ে নেয়। তার ভাবীর শালীনতা হানি করে।
এ সময়ে সাজেদুলদের চিৎকারে অন্যান্যরা এগিয়ে আসতে থাকলে বিবাদীরা  পালিয়ে যায়। যাবার সময়ে তার সাজেদুলের শোবার ঘারে ঢুকে সেখানে রাখা ৫০ হাজার পাঁচশ’ টাকা লুট করে পালিয়ে যয়। তাদের আক্রমনে সাজদুলের প্রায় ৭০ হাজার টাকার ক্ষয়ক্ষতি সাধিত হয়। এ ব্যাপারে উপরোক্ত বিবাদীদের আসামী করে  খানসামা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। তবে কেউ গ্রেফতার হয়েছে বলে জানা যায়নি।