দেলোয়ার  হোসেন বাদশা (দিনাজপুর২৪.কম) ঢাকায় গার্মেন্টসে চাকুরীরত দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার চকগোবিন্দ গ্রামের মাসুদা বেগম (২২) নামে এক গৃহবধুর আতœহত্যা নিয়ে ধু¤্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। গৃহবধুর বাবারবাড়ী উত্তর পলাশবাড়ী গ্রামের ফকির পাড়ায়। গৃহবধুর  বাবা  মোঃ মুছা  জানান, ৪ বছর পূর্বে উপজেলার ফতেজংপুর ইউনিয়নের চকগোবিন্দ গ্রামের মফিজ উদ্দীনের ছেলে জিয়াবুলের সাথে আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ে দেয়া হয়। তাদের ২ বছরের একটি সন্তানও আছে। বিয়ের পর হতে যৌতুকসহ বিভিন্ন দাবী নিয়ে উভয়ের মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া লেগেই থাকতো। জামাই জিয়াবুল প্রায়ই আমার মেয়েকে নির্যাতন করতো। গত ২০ জুলাই বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ঢাকা থেকে মোবাইল ফোনে জামাই জিয়াবুল জানায় মাসুদা গলায় দড়ি দিয়ে আতœহত্যা করেছে। সংবাদ পেয়ে পরদিন শুক্রবার সকালে আমার পরিবারের লোকজন নিয়ে ঢাকায় যাওয়ার প্রস্ততি নিলে জামাই মরদেহ নিয়ে বাড়ী রওয়ানা দিয়েছেন বলে মোবাইলে জানায়। বিকালে মরদেহ জামাইয়ের বাড়ী চকগোবিন্দ গ্রামে পৌছলে আমরা সেখানে যাওয়ার কথা শুনে বাড়ির লোকজনসহ জামাই  পালিয়ে যায়। বিষয়টি সন্দেহজনক মনে করে চিরিরবন্দর থানায় সংবাদ দিলে পুলিশ দ্রুত পৌছে মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম হাসপাতালে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। এ বিষয়ে চিরিরবন্দর থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে। মামলা নং-১৭, তারিখ-২১/০৭/২০১৭। চিরিরবন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ হারেসুল ইসলাম জানান, স্বামী স্ত্রী উভয়েই ঢাকায় আশুলিয়া এলাকায় ভাড়া বাসায় থেকে গার্মেন্টসে চাকুরী করতো। গৃহবধু মাসুদার মৃত্যু নিয়ে জল্পনা কল্পনা শুরু হয়েছে ময়না তদন্তের রিপোর্ট ছাড়া কোন কিছু বলা যাচ্ছেনা।