স্টাফ রিপোর্টার (দিনাজপুর২৪.কম) “সে চ’লে গেছে ব’লে কি গো স্মৃতিও হায় যায় ভোলা” বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের কবিতার লাইন দিয়ে অনুষ্ঠিত হলো নজরুল পরিষদ দিনাজপুর আয়োজিত যুগ¯্রষ্ঠা প্রেমিক মানবতা ও অসাম্প্রদায়ীক চেতনার কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী। সঙ্গীতে অনবদ্য সৃষ্টিকে স্মরণ করে এবারের আয়োজন ছিল আলোচনা সভা ও নজরুল সঙ্গীতের আসর।
দিনাজপুর নাট্য সমিতি মিলনায়তনে ২৯ আগষ্ট বুধবার রাতে আলোচনা সভায় সভাপত্বি করেন নজরুর পরিষদ দিনাজপুরের সভাপতি বিশিষ্ট চক্ষু চিকিৎসক ডাঃ শহিদুল ইসলাম খান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নিজামউদ্দীন আহমেদ রয়েল। প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম) মিজানুর রহমান মিজান (পিপিএম)। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বরূপ বকসী বাচ্চু ও নজরুল পরিষদের সহ-সভাপতি রবিউল আউয়াল খোকা। আলোচনা সভা শেষে “মানুষে মানুষে ভোদাভেদ ও বৈষম্য ভুলে সাম্যের আহ্বানকে সামনে রেখে “যেদিন আমি হারিয়ে যাব, বুঝবে সেদিন বুঝবে, অস্তপারের সন্ধ্যাতারায় আমার খবর পুছবে-বুঝবে সেদিন বুঝবে” শীর্ষক গানের ডালির মধ্য দিয়ে শুরু হয় নজরুল ইসলামের সঙ্গীত পরিবেশন। সঙ্গীত পরিবেশন করেন ডাঃ শহিদুল ইসলাম খান, নিজামউদ্দীন আহমেদ রয়েল, রেখা সাহা, লুৎফা নাজনীন লতা, হাসান আলী শাহ্, নজরুল ইসলাম নাজু, লক্ষী কান্ত রায়, সুজন দে। তবলায় ছিলেন লোটন সরকার, আজাদ রহমান ও জারমান বাবু। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, নজরুলের বিশাল ভান্ডার রয়েছে। নজরুলকে পরিপূর্ণ চর্চা করতে পারলে একজন পূর্ণাঙ্গ শিল্পী হিসেবে পরিচিত হওয়া সম্ভব। প্রেম প্রত্যাশি নজরুল ছিলেন একজন অভিমানী কবি। তিনি তার গানে বলেছেন প্রিয়ার চোখে জ্বল একটি ছলনা। আমাদের নতুন প্রজন্মদের নজরুল চর্চায় সম্প্রীক্ত করতে পারলে নজরুলকে আমরা চির জীবন হৃদয় লালন ও ধারণ করতে পারব।