নূর আলম সিদ্দিক (দিনাজপুর২৪.কম) বিয়ে করে সংসার বাধার স্বপ্ন পূরণ হলো না জাকিরের লাশ হয়ে ফিরলো দিনাজপুর শহরোস্থ পশ্চিম বালুয়াডাঙ্গা হঠাৎপাড়ার বাড়ীতে। এই হৃদয় বিদারক ঘটনাটি ঘটেছে দিনাজপুর পুর্ণভবা নদীর লোহার ব্রীজের ওপারে। দিনাজপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে ষষ্টিতলার মোড় হয়ে বালুয়াডাঙ্গা যাওয়ার পথে বায়ে রাস্তা দিয়ে গেলে উচারমোড় সোজা পশ্চিমে অবস্থিত বাংলাদেশ রেলওয়ের পূর্নভবা নদীর লোহার ব্রীজ। ব্রীজের ওপারে গেলেই হাতের ডানে চোখে পরবে দুটি আমের গাছ। আর এই আম গাছের নিচেই গলা কাটা, দু’ পায়ের রগ কাটা ক্ষত-বিক্ষত অবস্থায় নিথর হয়ে পরে রয়েছে জাকিরের মৃত দেহ।
জাকিরের পিতা শামসুল মোমিন সাংবাদিকদের জানায়, শুক্রবার আমার ছেলেকে মেয়ে পক্ষ থেকে দেখার জন্য লোক আসার কথা। বড় স্বপ্ন ছিল সংসার বাধার। অন্ধকারে ঢেকে গেল জাকির সহ গোটা পরিবারের স্বপ্ন। গত বৃহস্পতিবার রাত আনুমানিক সাড়ে ৯টায় একটু ঘুরা ফেরা করার জন্য বাড়ী থেকে বেড় হয়েছিল জাকির। সারারাত বাড়ীতে ফিরেনি। সকাল বেলা খবর পাই আমার ছেলের মৃত দেহ নদীর ওপারে আম গাছের তলায় পরে রয়েছে। পরিকল্পিত ভাবে তার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবী পরিবারের।
এ ব্যাপারে দিনাজপুর বিরল থানা অফিসার ইনচার্জ এটিএম গোলাম রসুল জানান, পূর্নভবা নদীর ধারে একটি লাশ ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় পরে রয়েছে এমন খবরে সরেজমিনে গিয়ে লাশ ময়না তদন্তের জন্য এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে সুরতহাল শেষে একটি মামলা দায়ের করা হবে। লাশটি এক নজর দেখার জন্য ভীড় জমিয়েছে হাজার হাজার মানুষ। মাত্র কয়েকদিন আগেই একটি লাশ পয় নিস্কাশন সেপ্টি ট্যাক থেকে উদ্ধার করে বিরল থানা পুলিশ। কয়েকদিন যেতে না যেতেই আবারও উদ্ধার হলো আরেকটি লাশ। সর্বশেষ খবরে জানা গেছে গতকাল শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে খুন হওয়া যুবক জাকিরের বিচারের দাবীতে এলাকার শত শত মানুষ মিছিল নিয়ে কোতয়ালী থানায় ঘেরাও করে।